Home সারাদেশ

নোয়াখালীতে মমতাজের গাড়িবহর অবরুদ্ধ

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতাকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে সড়ক ব্যারিকেড দেওয়ায় সাংসদ ও সঙ্গীতশিল্পী মমতাজের গাড়িবহর অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে। এ নিয়ে দলটির দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়। এতে উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আক্তারুজ্জামান আনসারী আহত হন। আশঙ্কাজনক অবস্থায় চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে বেগমগঞ্জে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা ও গরু ব্যবসায়ী বদিউজ্জামানকে বুধবার রাতে বেগমগঞ্জে অপহরণের অভিযোগে উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক আবদুল খালেককে (কসাই খালেক) আটক করে পুলিশ। এর প্রতিবাদে সেতুভাঙ্গা বাজারে তার পক্ষে দলের লোকজন গাছ ফেলে রাস্তায় ব্যারিকেড দেয়। এ সময় সংসদ সদস্য ও সঙ্গীতশিল্পী মমতাজের গাড়িবহর সেখানে আটকা পড়ে। নোয়াখালী শহীদ বুলু স্টেডিয়ামে সরকারের উন্নয়ন নিয়ে আয়োজিত এক কনসার্টে যোগ দিতে যাচ্ছিলেন মমতাজ ও তার সফরসঙ্গীরা। তাকে রাস্তায় আটকে রাখা নিয়ে কথা কাটাকাটি থেকে স্থানীয় আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এ সময় দুই ঘণ্টা মমতাজের গাড়ি আটকা পড়ে। পরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে মমতাজের গাড়ি ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যায়।

বেগমগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ জানায়, আওয়ামী লীগের চৌমুহনী পৌর সভাপতি ও মেয়র আক্তার হোসেন ফয়সল তার অনুসারীদের নিয়ে ব্যারিকেড তুলে দিতে বলেন। এ নিয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য মামুনুর রশিদ কিরনের অনুসারী অ্যাডভোকেট আক্তারুজ্জামানের লোকজনের সঙ্গে মেয়র ফয়সালের লোকজনের কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে সংঘর্ষ বাধে। এতে অ্যাডভোকেট আক্তারুজ্জামান আনসারীর মাথা ফেটে যায়। এ ঘটনায় এমপি কিরন গ্রুপ ও মেয়র গ্রুপের মধ্যে টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছে। ঘটনার জন্য সাংসদ ও মেয়র গ্রুপ পরস্পরকে দোষারোপ করছে। তবে শুক্রবার রাত পর্যন্ত কোনো পক্ষই মামলা করেনি।