মালয়েশিয়ার বৃহৎ মলে বাংলাদেশের কৃষিপণ্য

প্রকাশিত: জুন ১০, ২০২১ / ০৮:১৮অপরাহ্ণ
মালয়েশিয়ার বৃহৎ মলে বাংলাদেশের কৃষিপণ্য

বাংলাদেশের কৃষিপণ্য আলু ও পটোল বিক্রি হচ্ছে মালয়েশিয়ার বৃহৎ মল লুলুতে। মলে সাজিয়ে রাখা হয়েছে এশিয়া ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশের সবজি-ফল। সব দেশের পতাকাসংবলিত সবজি ও ফলের দাম আটানো হয়েছে। বাংলাদেশের আলু কেজিপ্রতি দাম লেখা রয়েছে ১.৯৯ রিঙ্গিত এবং পটোলের কেজিপ্রতি দাম লেখা রয়েছে ১২.৯৯ রিঙ্গিত।

১৯ মে সরেজমিন বৃহৎ মল লুলুতে দেখা গেছে, ক্রেতাদের বাংলাদেশের আলু ও পটোলের প্রতি চাহিদা। কয়েকজন ক্রেতা বাংলাদেশের স্টিকারসংবলিত আলু ও পটোল ২ কেজি, ৫ কেজি করে কিনে নিচ্ছেন। এক ক্রেতা প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, বাংলাদেশি সবজি তার খুব পছন্দ। তাই সবসময় এ ক্রেতা তার পছন্দের সবজি কিনেন।

মালয়েশিয়ার মেলাকার, সিতি নুরাইনি থাকেন কুয়ালালামপুর শহরে। চলমান বিধিনিষেধের কারণে একসঙ্গে প্রচুর সওদা কিনেছেন। এর মধ্যে তালিকায় তার পছন্দের সবজি আলু ও পটোল। অন্যান্য দেশের এ আইটেম থাকলেও দেখা গেল কিনেছেন বাংলাদেশের আলু ও পটোল। প্রশ্ন করা হলে সিতি বলেন, বাংলাদেশের আলু তার পছন্দ।

লুলুতে কাজ করেন প্রায় ১৩ থেকে ২০ বাংলাদেশি। টাঙ্গাইলের শফিক দুই বছর ধরে লুলুতে কাজ করছেন। শফিক জানান, আমাদের দেশের সবজির ব্যাপক চাহিদা রয়েছে এখানে। দুই বছর ধরেই দেখে আসছি ক্রেতারা কিনে নিচ্ছেন আমাদের দেশের সবজি। দেশের সবজি বিদেশের মাঠিতে বিক্রি হচ্ছে এটিই তার আনন্দ।

এদিকে মালয়েশিয়ার বাংলাদেশ হাইকমিশনের প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে কৃষি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশন (বিএডিসি) কর্তৃক উৎপাদিত আলু চলতি বছর মালয়েশিয়ায় রপ্তানি শুরু করে। এর আগে গত ২৩ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশের রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান ন্যানো গ্রুপ ও বিএডিসির মধ্যে আলু উৎপাদন ও রপ্তানিবিষয়ক একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

চুক্তি অনুযায়ী, বিএডিসি এ পর্যন্ত চারটি কনটেইনারের মাধ্যমে ১১১ টন ডায়মন্ড জাতের আলু মালয়েশিয়ায় রপ্তানি করেছে। মালয়েশিয়ার আমদানিকারক কোম্পানি মাইডিন মালয়েশিয়া, চীন হুয়াত ট্রেডিং ও টেনবিলি গ্রুপ এ আলু আমদানি করে। বিএডিসির ইতিহাসে এটিই সর্বপ্রথম মালয়েশিয়ায় আলু রপ্তানি। রপ্তানিকৃত এ আলু বগুড়া, পঞ্চগড় ও সিরাজগঞ্জ থেকে সরবরাহ করা হয়েছে।

বিএডিসির মানসম্মত বীজ আলু উৎপাদন, সংরক্ষণ ও কৃষক পর্যায়ে বিতরণ জোরদারকরণ প্রকল্পের আওতায় চুক্তিবদ্ধ চাষ বা কনট্রাক্ট ফার্মিংয়ের মাধ্যমে ডায়মন্ড জাতের উন্নতমানের এ আলু উৎপাদিত হয়েছে।
মালয়েশিয়া প্রতিবছর প্রায় ১০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের আলু আমদানি করে থাকে। এর মধ্যে অর্ধেকের বেশি আলু আমদানি করে চীন থেকে। মালয়েশিয়ার অন্যান্য প্রধান আলু আমদানিকারক দেশ হচ্ছে— বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, যুক্তরাষ্ট্র ও অস্ট্রেলিয়া।

বাংলাদেশ হাইকমিশনের কাউন্সেলর (বাণিজ্যিক) মো. রাজিবুল আহসান জানান, করোনা মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে মালয়েশিয়ায় খাদ্যপণ্য বিশেষ করে কৃষিপণ্যের আমদানি আগের তুলনায় বেড়ে গেছে। এ ছাড়া অন্যান্য কৃষিপণ্যের পাশাপাশি সম্প্রতি মালয়েশিয়াতে নতুন করে বাংলাদেশের কাঁচাকলা ও লেবু রপ্তানির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন হাইকমিশনের কাউন্সেলর।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন