নগদের কোটি টাকা নিয়ে উ’ধাও, কক্সবাজারে ধরা

প্রকাশিত: এপ্রি ৯, ২০২১ / ১১:১৮অপরাহ্ণ
নগদের কোটি টাকা নিয়ে উ’ধাও, কক্সবাজারে ধরা

টাঙ্গাইলের ঘাটাইলে মোবাইল ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠান ‘নগদ’-এর এজেন্টদের প্রায় কোটি টাকা নিয়ে পা’লিয়ে আ’ত্ম’গো’পনে গিয়ে আত্ম’রক্ষা হয়নি প্রতিষ্ঠানটির তিন কর্মচারীর। কক্সবাজারে আ’ত্ম’গো’পন থাকা অবস্থায় তাদের গ্রে’প্তা’র করেছে পুলিশ।

আ’ট’ককৃতরা হলেন- টাঙ্গাইলের মধুপুর উপজেলার মির্জাবাড়ির গ্রামের আনিসুল হকের ছেলে মো. আতিকুর রহমান (২৪), আবদুল হামিদের ছেলে নুরুল ইসলাম (২৫) ও আবদুল মান্নানের ছেলে শামীম হোসেন (২৪)। আটককৃতরা সকলেই ঘাটাইল উপজেলা সদরে অবস্থিত মোবাইল ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠান ‘নগদ’-এর ডিস্টিবিউটর প্রতিষ্ঠান মা এন্টারপ্রাইজের কর্মচারী। শুক্রবার (৯ এপ্রিল) গ্রে’প্তা’র’কৃতদের আদালতের মাধ্যমে জে’লহাজতে পাঠিয়েছে ঘাটাইল থানার পুলিশ।

জানা যায়, গত ৪ এপ্রিল জেলা ডিসট্রিবিউটর মহিউদ্দিন সুমন বাদি হয়ে তিনজনকে আ’সা’মি করে ঘাটাইল থানায় মা’মলা করেন। পুলিশ মোবাইল ট্রেকিংয়ের মাধ্যমে কক্সবাজারে তাদের অবস্থান নিশ্চিত হলে গত ৭ এপ্রিল শহরের কলাতলীর সেন্ট মার্টিন রিসোর্ট থেকে কক্সবাজার জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের সহায়তায় তাদের গ্রে’প্তা’র করে।

মা’ম’লার বিবরণ ও নগদের স্থানীয় এজেন্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মহিউদ্দিন সুমন নগদের টাঙ্গাইল জেলার চার উপজেলা ঘাটাইল, নাগরপুর, মির্জাপুর ও দেলদুয়ারের ডিসট্রিবিউশনের দায়িত্ব পালন করেন। ঘাটাইল উপজেলার কলেজ রোড এলাকায় ঘর ভাড়া নিয়ে মা এন্টারপ্রাইজ নাম দিয়ে নগদের কার্যক্রম পরিচালনা করতেন। সাধারণত স্থানীয় এজেন্টরা কম্পানির কর্মীর উপস্থিতিতে মোবাইলের মাধ্যমে ই-মানি ট্রান্সফার করে নগদ টাকা বুঝে নেন।

গত ৩ ও ৪ তারিখ নগদের কর্মীরা নগদ টাকার সংকট দেখিয়ে বাকিতে লেনদেন করেন। এভাবে কর্মীরা ৩০ জন এজেন্টের কাছ থেকে প্রায় কোটি টাকা হা’তিয়ে নেন। পরে ৪ মার্চ বিকেলে ফোন ও অফিস ব’ন্ধ করে কর্মীরা উধাও হন। ওই দিনই জেলা ডিসট্রিবিউটরকে বিষয়টি জানালে তিনি ক্ষ’তি’গ্র’স্ত এজেন্টদের নিয়ে থানায় মা’ম’লা করেন।

মাম’লার বা’দী জানান, ৩০ জন এজেন্টের কাছ থেকে ৫৬ লাখ এবং ডিসট্রিবিউটরের ৪২ লাখসহ মোট ৯৮ লাখ টাকা আ’ত্মসাতের উদ্দেশ্যে আ’ত্ম’গো’পনে যান তারা। এ ঘটনায় করা মাম’লায় ডিবি পুলিশের সহায়তায় তিন কর্মীকে কক্সবাজার থেকে গ্রে’প্তা’র করেছে পুলিশ।

নগদের টাঙ্গাইল জেলা ডিসট্রিবিউটর মহিউদ্দিন সুমন বলেন, ৩০ জন এজেন্ট ছাড়াও আরো অনেক এজেন্ট তাদের টাকা বে’হাত হওয়ায় অভি’যোগ করছেন। সকল এজেন্টদের সঙ্গে বসে টাকার বিষয়টি সমাধান করা হবে।

ঘাটাইল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) ছাইফুল ইসলাম বলেন, আসামিদের কক্সবাজার থেকে গ্রে’প্তা’র করে আদালতের মাধ্যমে জে’লে পাঠানো হয়েছে।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন