‘জামাত-শিবির-হেফাজতের জ’ঙ্গি’দের অবিলম্বে বি’চা’র দাবি’

প্রকাশিত: মার্চ ২৯, ২০২১ / ০৯:২৭অপরাহ্ণ
‘জামাত-শিবির-হেফাজতের জ’ঙ্গি’দের অবিলম্বে বি’চা’র দাবি’

গত কয়েকদিন ধরে জামাত-শিবির ও হেফাজতের জ’ঙ্গি’রা দেশব্যাপী স’ন্ত্রা’স চালিয়ে হ’ত্যা, ভাং’চু’র, অ’গ্নি’সং’যোগ করে রাষ্ট্রীয় সম্পদের ক্ষ’তি’সাধান করেছে বলে জানিয়েছে মহানগর ওয়ার্কার্স পার্টি।

আজ ২৯ মার্চ বিকেল ৪টায় বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি ঢাকা মহানগর আয়োজিত এক বি’ক্ষো’ভ সমাবেশে পার্টির নেতৃবৃন্দ এ কথা বলেন।

পার্টি কার্যালয়ের সামনে থেকে একটি বি’ক্ষো’ভ মি’ছি’ল শুরু হয় এবং জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। পার্টির মহানগর সভাপতি বীর মুক্তিযো’দ্ধা কমরেড আবুল হোসাইনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কমরেড জাকির হোসেন রাজু, কমরেড মোস্তফা আলমগীর রতন, মহানগর সাধারণ সম্পাদক কমরেড কিশোর রায়, কমরেড শাহানা ফেরদৌসি লাকী, কমরেড মোঃ তৌহিদ প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, তারা এমন সময় এই স’ন্ত্রা’স সৃষ্টি করেছে যখন বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকীর অনুষ্ঠান চলছিল। এই জ’ঙ্গি’দের মূল উদ্দেশ্য ছিল দেশে অরা’জগতা সৃষ্টি করে স্বাধীনতার সুর্বণজয়ন্তী ও বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী অনুষ্ঠান ভ’ন্ডু’ল করা। জ’ঙ্গি’দের ঔদ্ধত্য এতটাই ছিল যে, তারা থানা ও পুলিশ ফাঁড়িতে হা’ম’লা চালিয়েছে। তারা বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও স্বার্বভৌমত্বে বিশ্বাস করে না, জাতীয় সঙ্গীতকে সম্মান জানায় না। ওরা এতদিন সরকারি একটি অংশের ছত্রছায়ার বেড়ে উঠেছে। এদের এখনই নির্মূল করতে না পারলে বাংলাদেশের সংবিধান ও রাষ্ট্র ব্যবস্থায় সং’কট সৃষ্টি হবে। এই সাম্প্রদায়িক মৌলবাদি গোষ্ঠী সংবিধানের মৌলিক চারনীতি গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতা ও বাঙালি জাতীয়তাবাদে বিশ্বাস করে না। ওরা দেশদ্রো’হী। এই জ’ঙ্গী’দের অবিলম্বে গ্রে’ফ’তার, বি’চার ও নি’ষি’দ্ধ করতে হবে। তা না হলে দেশে এক ভ’য়া’বহ সংকট সৃষ্টি হবে।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন