শিক্ষার্থী নি’র্যা’তন : গ্রে’ফ’তার মাদ্রাসাশিক্ষ

প্রকাশিত: মার্চ ১৪, ২০২১ / ১১:৩৮অপরাহ্ণ
শিক্ষার্থী নি’র্যা’তন : গ্রে’ফ’তার মাদ্রাসাশিক্ষ

রংপুরের গঙ্গাচড়ায় দুই শিক্ষার্থীকে শা’রী’রিক নি’র্যা’ত’নের অ’ভি’যো’গে মোস্তাকিন বিল্লাহ (২৬) নামে এক মাদ্রাসা শিক্ষককে গ্রে’ফ’তার করেছে গঙ্গাচড়া মডেল থানা পুলিশ। শনিবার রাতে তাকে গ্রে’ফ’তা’র করা হয়।

ওই শিক্ষক গঙ্গাচড়া ইয়াহিয়া উল উলুম হাফিজিয়া কওমি মাদ্রাসার শিক্ষক ও উপজেলার বড়বিল ইউনিয়নের বিড়াবাড়ি গ্রামের শাহ আলমের ছেলে।

নি’র্যা’ত’নের শি’কা’র শিক্ষার্থীরা হলেন গঙ্গাচড়া উপজেলার বড়বিল ইউনিয়নের মন্থনা বাজার এলাকার আব্দুল মালেকের ছেলে মাসুদ রানা (১৩) ও নীলফামারী জেলার জলঢাকা উপজেলার শৈলমারী ইউনিয়নের কৈমারী গ্রামের বাবলু মিয়ার ছেলে শামিম (১৩)।

থানা পুলিশ ও নি’র্যা’ত’নের শি’কা’র শিক্ষার্থীর স্বজন জানান, ওই মাদ্রাসায় প্রায়ই বিভিন্ন কারণে শিক্ষার্থীদের শা’রীরিক নি’র্যা’ত’ন করা হয়। গত শনিবার দুপুরে ব্যক্তিগত পানির জগ অনুমতি না নিয়ে ব্যবহার করার কারণে ওই দুই শিক্ষার্থীকে লা’ঠি দিয়ে বে’দ’ম মা’র’পিট করে শিক্ষক মোস্তাকিন বিল্লাহ।

মা’র’পি’টের একপর্যায়ে তিনি বিষয়টি কাউকে না জানানোর জন্য বিভিন্ন হু’ম’কি দেন শিক্ষার্থীদের। সু’যোগ পেয়ে শনিবার রাতে নি’র্যা’ত’নের শি’কা’র শিক্ষার্থীসহ ওই মাদ্রাসার আরও ৫-৭ জন শিক্ষার্থী গঙ্গাচড়া মডেল থানায় এসে ওসির কাছে মৌখিক অ’ভি’যো’গ জানায়।

অ’ভি’যো’গে’র ভিত্তিতে মাদ্রাসা থেকে তাকে তাৎক্ষণিক গ্রে’ফ’তা’র করে পুলিশ। এ ঘটনায় রোববার নি’র্যা’ত’নের শি’কা’র মাসুদ রানার বাবা গঙ্গাচড়া মডেল থানায় মা’ম’লা দায়ের করেন।

গঙ্গাচড়া মডেল থানার ওসি সুশান্ত কুমার সরকার জানান, নি’র্যা’ত’নের শি’কা’র শিক্ষার্থীদ্বয়ের শ’রী’রে অসংখ্য আ’ঘা’তে’র চিহ্ন রয়েছে। তাদের গঙ্গাচড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। অ’ভি’যু’ক্তের বি’রু’দ্ধে শি’শু আইনে মা’ম’লা রেকর্ড করা হয়েছে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ওই মাদ্রাসা শিক্ষককে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন