গোপনে ২৮ জন পুরুষকে বিয়ে করেন রোমানা স্বর্ণা!

প্রকাশিত: মার্চ ১৪, ২০২১ / ১২:০২অপরাহ্ণ
গোপনে ২৮ জন পুরুষকে বিয়ে করেন রোমানা স্বর্ণা!

ক্যারিয়ারে একবারই চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। তিনি নিজেকে নায়িকা, মডেল, অভিনেত্রী হিসেবে দেন। তিনি ঢাকার শোবিজ সুন্দরী রোমানা ইসলাম স্বর্ণা। মাঝেমধ্যেই তাকে পাওয়া যেতো সামাজিক যোগাযোগামাধ্যম ফেসবুকের নতুন নতুন আইডিতে। সেইসব আইডিতে আপলোড হতো আপত্তিকর ও উষ্ণতা ছড়ানো ছবি। তার টার্গেটে থাকতো টাকাওয়ালা প্রবাসীরা।

এভাবেই প্রবাসীদের টার্গেট করে ফেসবুকে ‘ফ্রেন্ড’ বানিয়ে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলতেন। এরপর কখনও স্বামীর সঙ্গে বিচ্ছেদ, কখনওবা স্বামীহীন সংসারে আর্থিক টানাপোড়েনের ছলে ওইসব প্রবাসী প্রেমিকদের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিতেন।

সেইসব প্রবাসীরা দেশে ফিরলে রোমানা তাদের সঙ্গে দেখা করতেন। একান্তে অন্তরঙ্গ সময় কাটাতেন। সেইসব মুহূর্তের ছবি গোপনে ধারণ করে ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে বিয়ে করতেন। এভাবে প্রায় ২৭ জনের সঙ্গে প্রতারণা করে বিয়ে করে কাড়ি কাড়ি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন এই অভিনেত্রী। এমনকি রোমানার পরিবারের সদস্যরাও এই প্রতারণা চক্রের সঙ্গে জড়িত বলে জানা গেছে।

একইভাবে রোমানার রূপের জালে ধরা পড়েছিলেন সৌদি প্রবাসী কামরুল ইসলাম জুয়েল। কখনও ফ্ল্যাট কেনা, কখনও গাড়ি কেনার নাম করে জুয়েলের কাছ থেকে এক বছরে প্রায় আড়াই কোটি টাকা নিয়েছেন তিনি। রোমানার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগের জেরেই সৌদি থেকে দেশে ফিরে গত বৃহস্পতিবার (১১ মার্চ) রাজধানীর মোহাম্মদপুর থানায় স্বর্ণার নামে প্রতারণার মামলা করেন জুয়েল। মামলার পর ওইদিন বিকেলেই রাজধানীর লালমাটিয়ার সি ব্লকের একটি বাসা থেকে রোমানা স্বর্ণাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

গ্রেফতারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ওই রাতেই মোহাম্মদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল লতিফ বলেছিলেন, ‘ফেসবুকে পরিচয়ের মধ্য দিয়ে তাদের প্রেমের সম্পর্কের সূত্রপাত। বাদী জুয়েলের অভিযোগ, সম্পর্ক শুরুর পর থেকে বিভিন্ন সময় নানা অজুহাতে তার কাছ থেকে টাকা নিতেন স্বর্ণা। এক পর্যায়ে তারা বিয়ে করেন। বিয়ের পর ফ্ল্যাট কেনার টাকাও নেন স্বর্ণা। এভাবে তার কাছ থেকে ১ কোটি ৭৮ লাখ ৬০ হাজার টাকা নেন। সবশেষে জুয়েলকে ডিভোর্স দিতে চায় স্বর্ণা। এর আগে আবার জুয়েলের আপত্তিকর ছবি তুলে তা নিয়ে ব্ল্যাকমেইলও করার চেষ্টা করা হয়েছে বলে দাবি বাদীর। এরপরই তিনি মামলা করেছেন। মামলার পর আমরা স্বর্ণাকে গ্রেফতার করেছি। তাকে বিস্তারিত জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।’

জুয়েলের করা মামলার অপর দুই আসামি হলেন- রোমানার মাত আশরাফি আক্তার শেলী ও তার ছেলে আন্নাফি ইউসুফ ওরফে আনান।

গ্রেফতারের পর জিজ্ঞাসাবাদে উঠে এসেছে চাঞ্চল্যকর তথ্য। রোমানার প্রেমের ফাঁদে পা দিয়ে শুধু জুয়েলই সর্বস্বান্ত হননি, এরকম আরও ২৭ জনের প্রেমের প্রতারণা করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন রোমানা।

ওই ২৭ জনের বিষয়ে তথ্য না দিলেও কামরুল ইসলামের প্রতারিত হওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) ডিসি হারুন অর রশীদ বলেন, ‘রোমানার বিরুদ্ধে আমরা এমন প্রতারণার অনেক অভিযোগ পেয়েছি। অনেককে প্রলোভন দেখিয়ে তাদের ব্ল্যাকমেইল করে সর্বস্বান্ত করেছেন তিনি। টেলিফোনে প্রতারিতরা এসব অভিযোগ জানালে আমরা তাদের থানায় আসতে বলেছি।’

২০০৬ সালে মডেলিংয়ের মাধ্যমে শোবিজ অঙ্গনে আসেন স্বর্ণা। টিভি অভিনেত্রী হিসেবে অভিনয় শুরু করলেও পরে বড়পর্দায়ও কাজ করেন। ২০১৫ সালে তন্ময় তানসেনের ‘পদ্ম পাতার জল’ ও ২০১৬ সালে একই পরিচালকের ‘রান আউট’ ছবিতে অভিনয় করেন রোমানা স্বর্ণা।

২০১৯ সালের মার্চে স্বর্ণা ও জুয়েলের বিয়ে হয়। বিয়ের পর কিছুদিন তারা একসঙ্গে ছিলেন। এরপর জুয়েল আবার সৌদি চলে যান। একপর্যায়ে স্বর্ণা জুয়েলকে জানান, তার সঙ্গে তিনি আর সংসার করতে পারবেন না। তাতেই বিপত্তির শুরু।

সূত্র : ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন