ঝাঁঝ কমেছে পেঁয়াজ-আদার, বেড়েছে রসুনের

বোরো মৌসুমের শুরুতেই পাইকারি বাজারে কমতে শুরু করেছে সব ধরনের চালের দাম। তবে অনেকটাই বেড়ে গেছে পোলাও’র চালের দাম। নিত্যপণ্যের বাজারে দাম বেড়েছে মসুর ডাল ও রসুনের। তবে খানিকটা কমেছে আটা, ময়দা, চিনি ও পেঁয়াজের দাম।

রাজধানীর অন্যতম বড় এই পাইকারি বাজারে খুব একটা ব্যস্ততা নেই বেচাকেনায়। অল্প পরিসরে চলছে চাল আনলোডের কাজ। বোরো মৌসুমের শুরুতেই স্বস্তির খবর দিলেন পাইকাররা। জানালেন, প্রতিকেজি মিনিকেট চালের দাম কমেছে ৫ টাকা পর্যন্ত। কমতির দিকে অন্যান্য চালও। তবে হঠাৎ করেই কেজিতে প্রায় ১৫ টাকা বেড়ে গেছে পোলাও’র চালের দাম।

পাইকাররা বলেন, ‘নতুন চাল আসায় মিনিকেট চাল কেজিতে ৫টাকা কমেছে। অন্যান্য চালের দাম কমতির দিকে। সবচেয়ে বেশি বাড়তি হচ্ছে পোলাওয়ের চাল।’

মসলা জাতীয় কাঁচা পণ্যের বাজারে দেখা গেলো সপ্তাহ ব্যবধানে বেড়েছে রসুনের দাম। তবে দাম কমেছে দেশি-বিদেশি পেঁয়াজ ও আদার।

বিক্রেতারা বলেন, ‘গেল সপ্তাহে আমরা দেশি পেঁয়াজ বিক্রি করেছি কেজিতে ২৪ টাকা এই সপ্তাহে ২০ টাকা। আর ইন্ডিয়ান পেঁয়াজ বিক্রি করেছি ২০ টাকা এখন সেটা ১৮ থেকে ১৭ টাকা। আদা ৮০ টাকা, আগের সপ্তাহে ছিল ৮৮ টাকা।’

নিত্যপণ্যের বাজারে দাম কমেছে আটা, ময়দা, চিনির। সপ্তাহ ধরে ভোজ্যতেল ও ছোলার দাম স্থিতিশীল থাকলেও এ সপ্তাহের শুরুতেই বেড়েছে মসুর ডালের দাম।

বিক্রেতারা বলেন, ‘চার থেকে পাঁচ দিনের মধ্যে চিনি প্রতি কেজিতে ৫ টাকা দাম কমেছে। দেশি মসুরের বাজার বাড়তি। আটা আর ময়দা প্রতি বস্তায় ২০ থেকে ৩০ টাকা কম।’

পাইকারি পর্যায়ে এলাচ ও দারুচিনির দাম উর্ধ্বমুখী হলেও দামের কোন হেরফের নেই লবঙ্গ, গোলমরিচ, জিরা তেজপাতার।

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত