নিউজিল্যান্ডে স্বল্প মজুরিতে অতিরিক্ত কাজ করানোয় বাংলাদেশি ব্যবসায়ী দম্পতির জেল

অভিবাসী শ্রমিকদের স্বল্প মজুরিতে অতিরিক্ত কাজ করানো ও অভিবাসন সংক্রান্ত অন্যান্য অভিযোগে নিউজিল্যান্ডে বাংলাদেশি এক দম্পতি দণ্ডিত হয়েছেন।সূত্র: বাংলাদেশ টুডে

স্বামী মোহাম্মদ আতিকুল ইসলামকে সাড়ে চার বছর ও স্ত্রী নাফিসা আহমেদকে আড়াই বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে দেশটির আদালত। ওই দম্পতি নিউজিল্যান্ডের অকল্যান্ডে মিষ্টি তৈরির ব্যবসা পরিচালনা করে আসছিলেন।

ওই দম্পতির বিরুদ্ধে অভিযোগ, শ্রমিকদের প্রতি ঘণ্টার জন্য মাত্র ৬ ডলার দিয়ে আসছিলেন এবং মজুরি ছাড়াই ছুটির দিনে শ্রমিকদের কাজ করান তারা।

নিউজিল্যান্ডে ওই দম্পতি পরিচালিত ‘রয়েল বেঙ্গল ক্যাফে’র দুই শেফ তাদের বিরুদ্ধে দেশটির আদালতে অভিযোগ করেন। স্বল্প মজুরির বিনিময়ে দীর্ঘ সময় ধরে কাজ করানো ও ছুটির দিনও মজুরি না দিয়ে কাজ করানোর অভিযোগের বিষয়ে আদালতে শুনানি হয়েছে।

অকল্যান্ড ডিস্ট্রিক্ট কোর্টে ১০ দফা শোষণ ও সাত দফা অভিবাসন সংক্রান্ত অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন মোহাম্মদ আতিকুল ইসলাম (৩০)। বিচারের গতিকে ভিন্নখাতে নেয়ার জন্য তার বিরুদ্ধে আরো তিন দফা অভিযোগ আনা হয়। অন্যদিকে তার স্ত্রী নাফিসা আহমেদকে শোষণের সাত দফা অভিযোগে যৌথভাবে অভিযুক্ত করা হয়েছে। তারা ৫ জন ব্যক্তির ওপর ওই শোষণ করেছেন বলে অভিযোগ ছিল।

আতিকুল ইসলাম ও নাফিসা আহমেদ দম্পতির বিরুদ্ধে অবৈধভাবে দুই বাংলাদেশিকে নিউজিল্যান্ডে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগও রয়েছে। তাদের মিষ্টির দোকানে কাজের কথা বলে নিউজিল্যান্ডে নিয়ে যাওয়ার পরপরই ওই দুই শেফের পাসপোর্ট বাজেয়াপ্ত করে নেয় দেশটির প্রশাসন।

প্রসিকিউটর জেকব পেরি বলেন, তাদের হাতে শোষণের শিকার হওয়া ওই ব্যক্তিরা অভিযোগ করেন, ‘অতিরিক্ত কাজের চাপে তারা মারা যাচ্ছেন। ওই দম্পতি তাদের শ্রমিকদের শারীরিক অবস্থার চেয়ে ব্যবসায়িক দিকে নজর বেশি দিয়ে থাকেন।

অন্যদিকে বিচারক গিবসন বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া ওই দম্পতি নিউজিল্যান্ডের মজুরি আইন সম্পর্কে সচেতন আছেন, কারণ তারা অনেক দিন ধরে নিউজিল্যান্ডে আছেন। তাদের কিছু কাজ নিন্দনীয়। সবকিছু বিবেচনা করে অপরাধ প্রমাণ হওয়ায় তাদের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত