জীবিত অক্টোপাস খেতে গিয়ে…ছেড়ে দে মা কেঁদে বাঁচি (ভিডিও)

জীবন্ত একটি অক্টোপাস খেতে গিয়েছিলেন চীনা এক যুবতী। কিন্তু ঘটলো উল্টো। ওই অক্টোপাসই তাকে আক্রমণ করে বসলো। কর্ষিকা দিয়ে তার ঠোঁট ও মুখের অন্যান্য অংশ কামড়ে ধরলো। ব্যাস, অক্টোপাস খাওয়া তো দূরের কথা। এবার ছেড়ে দে মা কেঁদে বাঁচি অবস্থা। পরিমড়ি করে তিনি অক্টোপাসের কর্ষিকাগুলো ছুটাতে থাকেন। ততক্ষণে চিকুকে কর্ষিকা দিয়ে দাগ বসিয়ে দিয়েছে অক্টোপাস।

ওই যুবতী একজন ব্লগার। তার ভিডিও যাতে বেশি বার দেখা হয় এ জন্য তিনি জীবিত অক্টোপাস খাওয়ার দৃশ্য লাইভ দেখাচ্ছিলেন। তিনি ‘সি-সাইড গার্ল লিটল সেভেন’ হিসেবে পরিচিত। সমুদ্রের প্রাণীদের নিয়ে তিনি বিভিন্ন রকম পোস্ট দিয়ে থাকেন। এ জন্য চীনের কুইশোঝতে অক্টোপাস নিয়ে ওই খেলায় মেতেছিলেন।

অক্টোপাস যখন উল্টো তাকেই আক্রমণ শুরু করলো তখন চিৎকার শুরু করেন তিনি। আট পা বিশিষ্ট অক্টোপাস তার মুখ, ঠোঁট কামড়ে ধরে। ত্বকের ওপর জোঁকের মতো লেগে যায়। এ অবস্থায় তাকে চিৎকার করে বলতে শোনা যায়, প্রচণ্ড ব্যথা লাগছে। আমি ওকে ছুটাতে পারছি না।

যখন অক্টোপাস তাকে শক্ত করে আক্রমণ করে বসে তখন বেপরোয়া হয়ে পড়েন ওই যুবতী। তিনি অক্টোপাসের কর্ষিকাগুলো শক্তি প্রয়োগ করে টেনে ছুটাতে থাকেন। তার বাম চোখের নিচে তখন প্রায় ফুটো করে ফেলেছে অক্টোপাসে। সেখান দিয়ে রক্ত ঝরছে। উল্লেখ্য, অক্টোপাস জোঁকের মতো ডিস্কযুক্ত। তার কর্ষিকাগুলোতে এসব ডিস্ক ব্যবহার করে সে তার শিকার ধরে। প্রতিটি কর্ষিকায় আছে কমপক্ষে ২০০ সাকশন বা চোষক কাপ, যা মানুষের ত্বকে শক্ত করে লেগে যায়।

৫০ সেকেন্ডের ওই ভিডিওটি এখন ভাইরাল। দেশ বিদেশে দর্শক তা দেখছেন। ছড়িয়ে পড়েছে চীনের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ওয়েবো, ইউটিউব ও টুইটারে। তবে জীবিত অক্টোপাস খেতে ব্যর্থ হওয়ার জন্য ওই যুবতীর সমালোচনাও হচ্ছে।

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত