এক ম্যাচে তিন দলের ভাগ্য নির্ধারণ!

এক ম্যাচে তিন দলের ভাগ্য নির্ধারণ! বুধবার রাতের ওল্ড ট্র্যাফোর্ড এ রকমই একটা ম্যাচের সাক্ষী থাকছে। যেখানে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড মুখোমুখি নগরপ্রতিদ্বন্দ্বী ম্যানচেস্টার সিটির। শহরের লাল বনাম নীলের এই ম্যাচে অবশ্য নজর রাখবে দূরের শহরের আরেক লাল দলও। লিভারপুল।

এই মুহূর্তে লিভারপুল ৩৫ ম্যাচে ৮৮ পয়েন্ট। ম্যানসিটির ৩৪ ম্যাচে ৮৬ পয়েন্ট। ম্যানচেস্টার ডার্বিতে নীল জার্সির সিটির জিতে যাওয়া মানেে আবার এক পয়েন্ট এগিয়ে যাওয়া। আর লাল জার্সির ইউনাইটেড যদি আটকে দিতে পারে সিটিকে বা হারিয়ে দেয়, তা হলে তিন ম্যাচ আগে কিছুটা সুবিধা তো পাবে ইয়ুর্গেন ক্লপের লিভারপুল। সিটি-লিভারপুলের সঙ্গে এই ম্যাচ ম্যানইউর শেষ চারের ভাগ্য অনেকটা নির্ধারণ করবে।

এই মুহূর্তে সবচেয়ে বেশি আলোচনা হচ্ছে ইউনাইটেডকে নিয়ে। ওলে গানার সোলশেয়ারের দল হঠাতই হারের ‍বৃত্তে। এভার্টনের কাছে চার গোল হজমের পর অশান্তি ইউনাইটেডের অন্দরে। বিশ্লেষকদের আলোচনায় বারবার উঠে আসছে পগবা-র‍্যাশফোর্ডরা কতটা লড়াই চালাতে পারবেন আগুয়েরো-স্টার্লিংদের বিরুদ্ধে।

যদিও কোচ কোচ ওলে গানার জোরের সঙ্গে দাবি করছেন, ‘আমার দলের ফুটবলারদের অনেকের মধ্যেই ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের ডিএনএ আছে।’

সিটি কোচ গার্দিওলা অবশ্য কোনো রকম ঝুঁকি না নিয়ে চূড়ান্ত সতর্ক থাকতে চাইছেন। গত সপ্তাহে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে ফিরতি লেগের ম্যাচে জিতেও শেষ রক্ষা হয়নি। ছিটকে জেতে হয়েছে সিটিকে। সে সব মাথায় রেখেই বার্সেলোনা সাবেক কোচের মন্তব্য, ‘লিভারপুলের স্কোয়াড অনেক বড়। আর তারা সঠিক সময়ে ফর্মে এসেছে। আমার দলেরর এক ইঞ্চি ভুলের জায়গা নেই। তা হলেই সব শেষ।’

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত