রাঙামাটিতে নুসরাত হত্যার অন্যতম ‘পরিকল্পনাকারী’ গ্রেপ্তার

ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যাকাণ্ডের অন্যতম পরিকল্পনাকারী ইফতেখার উদ্দিন রানাকে রাঙামাটি গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেশটিগেশন পিবিআই। সংস্থাটির চট্টগ্রাম অঞ্চলের দায়িত্বপ্রাপ্ত একজন কর্মকর্তা ঢাকাটাইমসকে এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

গ্রেপ্তার হওয়া ইফতেখার উদ্দিন রানা ফেনীর সোনাগাজী উপজেলার চরগনেশ গ্রামের জামাল উদ্দিনের ছেলে।

পিবিআই কর্মকর্তা বলেন, প্রযুক্তির সহায়তায় গত বুধবার মধ্যরাতে রাঙামাটি শহরের টিএনটি একটি আবাসিক কোয়াটার থেকে রানাকে আটক করা হয়। নুসরাত হত্যাকাণ্ডের পর তিনি রাঙামাটির টিএনটিতে তার ঘনিষ্ঠ এক আত্মীয়ের বাসায় আত্মগোপন করেছিলেন। পিবিআই প্রযুক্তির সহায়তায় তার অবস্থান নিশ্চিত করার পর তাকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়।

ওই কর্মকর্তা আরও বলেন, তদন্তে দেখা গেছে ইফতেখার উদ্দিন হত্যাকাণ্ডের অন্যতম পরিকল্পনাকারী ছিলেন। হত্যাকাণ্ডের সময় পাহারা দেওয়ার কাজ করেছিলেন তিনি। মামলার এজাহারে তার নাম না থাকলেও তদন্তে পাওয়া গেছে তার সম্পৃক্ততা।

নুসরাত সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার আলিম পরীক্ষার্থী ছিলেন। ওই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলার বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগে নুসরাতের মা বাদী হয়ে গত ২৭ মার্চ সোনাগাজী থানায় মামলা করেন। এরপর অধ্যক্ষকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠায় পুলিশ। মামলা তুলে নিতে বিভিন্নভাবে নুসরাতের পরিবারকে হুমকি দেয়া হচ্ছিল।

গত ৬ এপ্রিল সকালে আলিম আরবি প্রথমপত্রের পরীক্ষা দিতে সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে যান নুসরাত। এসময় কৌশলে তাকে ভবনের ছাদে ডেকে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। সেখানে তার গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১০ এপ্রিল রাতে নুসরাত মারা যান।

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত