শ্বশুরবাড়িতে জামাইকে গলাকেটে হত্যা, স্ত্রী-শ্বাশুড়ি গ্রেপ্তার

গাইবান্ধার পলাশবাড়ি উপজেলার কিশোরগাড়ী গ্রামে শ্বশুরবাড়িতে বেড়াতে আসা জামাই মোমিরুল ইসলাকে গলাকেটে হত্যা করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে নিহতের শ্বাশুড়ি জাহানারা বেগম ও স্ত্রী তন্নি আকতারকে গ্রেপ্তার করেছে।

পলাশবাড়ি থানার ওসি হিফজুর রহমান জানান, দীর্ঘদিন আগে একই উপজেলার ঝালিঙ্গি গ্রামের মোমিরুলের সঙ্গে কিশোরগাড়ি গ্রামের তন্নি আকতারের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে স্ত্রীর পরকীয়া নিয়ে দু’জনের মধ্যে বনিবনা হচ্ছিলো না।

মঙ্গলবার রাতে জামাই মোমিরুলকে দাওয়াত দিয়ে বাড়িতে নিয়ে আসেন শ্বশুর তারামিয়া। পরিকল্পনা অনুযায়ী জামাইকে ভালোভাবে খাওয়া-দাওয়া করিয়ে স্ত্রী তন্নির সহযোগিতায় বাড়ির সবাই মিলে ধরে গভীররাতে ধারালো অস্ত্র দিয়ে গলাকেটে হত্যা করে।

এ সময় তার গোঙানি শুনে আশেপাশের লোকজন এসে ঘরে ঢুকে নির্মম এ ঘটনা দেখতে পায়। আজ ভোরে পুলিশকে খবর দেয়া হলে পলাশবাড়ি থানা পুলিশ এসে গলাকাটা করা লাশ উদ্ধার করে।

পরে পুলিশ নিহতের স্ত্রী তন্নি আকতার ও শ্বাশুড়ি জাহানারাকে গ্রেপ্তার করে। শ্বশুর তারা মিয়া পালিয়ে যান।

সকালে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে। এ ব্যাপারে পলাশবাড়ি থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত