হানিমুনে গিয়ে কোনও খরচেই নারাজ স্বামী, স্বামীকে ডিভোর্স নববধূর

বিবাহ বিচ্ছেদের ঘটনা অতীতের তুলনায় এখনকার যুগে যথেষ্ট সহজ হয়ে গেছে। এই তো গত ফেব্রুয়ারিতে বিয়ের ৩ মিনিটের মাথায় স্বামীকে ডিভোর্স দিয়ে বিশ্বরেকর্ড গড়েন কুয়েতের এক নারী। স্বামীর অপরাধ ছিলো বউকে দুষ্টুমি করে বোকা বলেছিলো। তবে এবার কিপটেমি করায় স্বামীকে ডিভোর্স দিলেন সংযুক্ত আরব আমিরাতের এক নারী।

হানিমুনে গিয়ে কিপটেমি করায় স্বামীকে ডিভোর্স দিয়েছেন সংযুক্ত আরব আমিরাতের ওই নারী। ওই নারীর অভিযোগ, হানিমুনে গিয়ে সস্তা জিনিসে আকর্ষণ এবং সবকিছুর বিল তাকে দিয়ে পরিশোধ করছিলেন তার স্বামী।

মধ্যপ্রাচ্যের সংবাদপত্র আল বাইয়্যার এক প্রতিবেদনে ওই নারীর নাম উল্লেখ না করে বলা হয়েছে, ব্যক্তিগত সম্পর্ক সংক্রান্ত আবু ধাবির আদালতে ডিভোর্স চেয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন ওই নারী। তার বর ইরানের নাগরিক। যদিও কাগজকলমে এখনও তাদের হানিমুন চলমান।

ওই নারী জানান, স্বামী তার চেয়ে বয়সে তের বছরের ছোট। সে সবকিছুর খরচ স্ত্রীকে দেওয়ার জন্য বলতো। বাদ ছিল না মুদি দোকান, বিদ্যুৎ আর পানির বিলও। এমন কঞ্জুস স্বামীর কবল থেকে মুক্তি পেতে একরকম মরিয়াই হয়ে উঠেছিলেন ওই নারী। কারণ, ভদ্রলোকের এমন কিপটেমির অভ্যাস একেবারেই নতুন নয়। তার অভিযোগ, ব্যক্তিগত কাগজপত্র ‘কঞ্জুস’ স্বামী সব ইউটিলিটি বিল রেজিস্ট্রি করিয়েছিলেন স্ত্রীর নামে।

এমনকি, বিয়েতে এক পয়সাও খরচ করেননি অভিযুক্ত স্বামী। উপরন্তু, ঘরের সব আসবাবপত্র নিজ খরচে কিনেছিলেন তার স্ত্রী। তবুও তিনি স্ত্রীকে তাচ্ছিল্য করতেন। সহ্যের সীমা ছাড়িয়ে গেলে হানিমুন শেষ হওয়ার আগেই ডিভোর্সের সিদ্ধান্ত নেন তিনি।

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত