শাহবাগে নুসরাতের খুনিদের ফাঁসির দাবিতে গণ-অবস্থান

ফেনীর অগ্নিদগ্ধ নুসরাত জাহান রাফিকে দিনদুপুরে পরীক্ষা কেন্দ্রে পুড়িয়ে হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত ও নেপথ্য খলনায়কদের ফাঁসির দাবি নিয়ে শাহবাগে গণ-অবস্থান শুরু করেছে নুসরাত জাগরণ মঞ্চ। বৃহস্পতিবার (১১ এপ্রিল) বিকেল ৪টা থেকে এ কর্মসূচি শুরু হয়। প্রথম দিনেই ৫ ঘন্টা অবস্থান করেন তারা। এ সময় নুসরাতের খুনিদের ফাঁসির দাবিতে নানান শ্লোগান দেন সংগঠনটি ।

জাগরণ মঞ্চের আহ্বায়ক আমের মক্কী জানান, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আহবান জানিয়ে একত্রিত হয়েছেন তারা। ফেসবুকে ব্যানার দেখে প্রায় কয়েকশত লোক নুসরাতের হত্যাকারীদের বিচারে গণ-অবস্থানে অংশ নিয়েছেন। এরইমধ্যে একাত্মতা পোষণ করে চারটি সামাজিক সংগঠন এই আন্দোলনে নিয়মিত পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছেন। এছাড়াও কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকশত শিক্ষার্থী এবং সাধারণ মানুষও গণ-অবস্থানে শরিক হয়েছে বলে জানান তিনি।

গণ-অবস্থানে অংশ নিয়ে শিক্ষক ও সাংবাদিক নেতা বোরহান উদ্দিন ফয়সাল বলেন, এর আগে একবছর আগে নুসরাত জাহান রাফির ওপর হামলা হয়েছিল। তখন হামলার বিচার না হওয়ায় নুসরাতকে দ্বিতীয় দফায় পুড়ে মরতে হলো। প্রশাসন এ দায় এড়াতে পারে না। অভিযুক্ত মাদ্রাসার অধ্যক্ষসহ যারা সরাসরি হামলায় অংশগ্রহণ করেছেন এবং নেপথ্যে এই হামলার হোতা তাদেরও দৃষ্টান্ত শাস্তি দাবি করেন।

একটি মাসিক পত্রিকার সম্পাদক আলাউদ্দিন আদর গণ-অবস্থানে অংশ নিয়ে বলেন, ফেনীতে বার বার মানুষ পুড়িয়ে হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় বাংলাদেশে এ জেলাটি বিশ্বব্যাপী সমালোচিত। একরাম হত্যা থেকে শুরু করে নুসরাত পর্যন্ত সকল খুনিদের ফাঁসি কার্যকর করে ফেনীবাসীকে দায় মুক্ত করতে সরকারকে আহবান জানান আলাউদ্দিন আদর।

ব্লাড রিলেশন বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট শাহিদুল হামিদ রাহাত বলেন, প্রধানমন্ত্রীর মহৎ উদ্যেগে হেরে যাওয়ার আগ মুহূর্তে পর্যন্ত নুসরাত সু-চিকিৎসা পেয়েছে। এখন প্রধানমন্ত্রী ইচ্ছে করলেই সকল খুনিদের বিচার কার্যকর হওয়াও সম্ভব।

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত