ধর্ষণের অভিযোগ নারী সাব-ইন্সপেক্টরের বিরুদ্ধে !

গত ১৪ মার্চ রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থানার একটি আবাসিক এলাকা একটি বাড়িতে অতর্কিত অভিযান চালিয়ে বেশ কয়েকজন দেহব্যবসায়ীকে আটক করে যাত্রাবাড়ী থানা পুলিশ। নির্দিষ্ট ধারায় মামলা দিয়ে আদালতে আদালতে চালানও দেয়া হয় তাদের। অভিযানের সময় পুলিশকে টাকা দিয়ে আপস মিমাংসার প্রস্তাব দেয়া হলেও পুলিশ রাজী হয়নি। আর এ কারণে জামিনে বের হয়ে এক নারী মামলা ঠুকে দেন যাত্রাবাড়ী মডেল থানার ওসি কাজী ওয়াজেদসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে। অভিযোগ তারা সকলেই ওই নারীকে অপহরণ ও ধর্ষণ করেছে। তাদের মধ্যে লাইজু নামের যাত্রাবাড়ী থানায় কর্মরত একজন নারী সাব-ইন্সপেক্টরও রয়েছেন।

পুলিশ ইন্সপেক্টর কাজী ওয়াজেদ দীর্ঘদিন ধরে ডিএমপির বিভিন্ন থানায় কর্মরত রয়েছেন। কিন্ত তার বিরুদ্ধে এমন মামলার খবরে সকলেই হতবাক হয়েছেন। স্থানীয় অনেকেরই দাবি পরিকল্পিত ভাবে ফাঁসানো হচ্ছে ওসি কাজী ওয়াজেদকে।

এ ব্যাপারে যাত্রবাড়ী থানার ওসি কাজী ওয়াজেদ বলেন, আমার নামে যে অভিযোগে মামলা করা হয়েছে আমার দ্বারা এমন কাজ সম্ভব কি না তা আমার সহকর্মীরাই জানে। তবুও যিনি আদালতে মামলা করেছেন তার সেই মামলার তদন্তও আইনানুযায়ী চলছে। এটা আদালতের ব্যাপার। সাম্প্রতিক সময়ে আমাদের থানা পুলিশ এমন অভিযানের তৎপরতা বাড়ানোয় থামানোর একটা অপচেষ্টার অংশও হতে পারে এ মামলা।

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত