তাই বলে ঘরের ভেতর বিদ্যুতের খুঁটি?

ঘরের ভেতরে পল্লী বিদ্যুতের খুঁটি নিয়ে ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করছে একটি দরিদ্র পরিবার। ওই পরিবার শঙ্কার মধ্য দিয়ে দিনযাপন করলেও বিদ্যুতের খুঁটিটি সরাতে কর্তৃপক্ষের কোনো উদ্যোগ নেই। ওই অবস্থায় চরম শঙ্কার মধ্যে বসবাস করছে পরিবারটি।

ঘরের ভেতরে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন বিদ্যুতের সঞ্চালন লাইন সরবরাহকারী বিদ্যুতের খুঁটি থাকা স্বাভাবিক ঘটনা নয়। বিদ্যুতের খুঁটি সাধারণত উন্মুক্ত স্থানে থাকে। কিন্তু ঈশ্বরগঞ্জের মগটুলা ইউনিয়নের বৈরাটি ছাতিয়ানতলা গ্রামের কাঠমিস্ত্রি নইম উদ্দিনের ঘরের ভেতর পল্লী বিদ্যুতের একটি খুঁটি রয়েছে। পল্লী বিদ্যুতের খুঁটি ঘরের মধ্যে নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করছে নইম উদ্দিনের পরিবার।

ঘরের ভেতরে বিদ্যুতের খুঁটি থাকার বিষয়টি নিয়ে ২০১৭ সালের ৬ মার্চ সমকালের লোকালয় পাতায় ‘ঘরের ভেতর বিদ্যুতের খুঁটি’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পর বিদ্যুৎ বিভাগ তৎপরতা শুরু করলেও এখনও সরানো হয়নি ঘরের ভেতর থেকে বিদ্যুতের খুঁটিটি।

গতকাল শনিবার নইম উদ্দিনের বাড়িতে গেলে তার স্ত্রী আমেনা খাতুন জানান, ১২ বছর ধরে তারা ঘরের মধ্যে বিদ্যুতের খুঁটি নিয়ে বসবাস করছেন। আগে টিনের চালার ঘর থাকায় সেই ঘরের বারান্দায় ছিল পল্লী বিদ্যুতের সরবরাহ লাইনের খুঁটি। খুঁটির টানা ছিল ঘরের মধ্যে। এভাবে দীর্ঘদিন বসবাস করার পর তিন বছর আগে নিজের সম্বলের ওপর একটি ভালো ঘর তৈরির পরিকল্পনা করেন। কিন্তু বিদ্যুতের খুঁটির জন্য সঠিকভাবে কাজ করা যাচ্ছিল না। ওই অবস্থায় খুঁটিটি সরানোর প্রয়োজন হয়। কিন্তু তারা বিদ্যুতের খুঁটিটি সরাতে পারেননি। পরে তাদের আর কোনো জমি না থাকায় পল্লী বিদ্যুতের খুঁটি ভেতরে রেখেই পাকা ঘর করেছেন।

ময়মনসিংহ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-৩-এর ঈশ্বরগঞ্জ সাব-জোনাল অফিসের এজিএম মো. জসিম উদ্দিন বলেন, ঘরের ভেতর বিদ্যুতের খুঁটি থাকার বিষয়টি তার জানা নেই। যথাযথভাবে আবেদন করে নির্দিষ্ট ফি দিলেই খুঁটি সরানোর ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে।

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত