‘সাবেক ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী ও সেনাপ্রধানের ফোনালাপ ইরানের হাতে’

ইরান ইসরায়েলের সাবেক সেনা প্রধান ও সাবেক প্রধানমন্ত্রীর মোবাইল ফোনের তথ্য হাতিয়ে নিতে সক্ষম হয়েছে। ইসরায়েলি দৈনিক হারেৎজ সম্প্রতি এ খবর দিয়েছে।

দৈনিকটি জানিয়েছে, ইরানের সাইবার হামলার ক্ষমতা এতটা বেড়েছে যে ইরানিরা ইসরায়েলি সশস্ত্র বাহিনীর সাবেক চিফ অফ স্টাফস বেনিআমিন গান্তয্‌-এর মোবাইল ফোন সনাক্ত করে ওই ফোন থেকে তথ্য হাতিয়ে নিতে সক্ষম হয়েছে। গান্তয্‌ ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার জন্য প্রার্থী হয়েছেন।

কিছুকাল আগে এই একই দৈনিক জানিয়েছিল ইরানি হ্যাকাররা ইসরায়েলের সাবেক প্রধানমন্ত্রী বারাকের মোবাইল ফোনও হ্যাক্ করতে সক্ষম হয়। কোনো কোনো সূত্র বলেছে, ইরান সরাসরি এই সাইবার হামলা চালিয়েছে। অবশ্য কোনো কোনো সূত্র বলেছে, ইরান এক বিদেশী হ্যাকারের মাধ্যমে এই হামলা চালায় এবং ওই হ্যাকারই ওইসব মোবাইলের তথ্য ইরানের কাছে হস্তান্তর করে।

ইরানি হ্যাকাররা প্রায় দেড়-দুই মাস আগে ইহুদ বারাকের মোবাইল হ্যাক করে তার অনেক ব্যক্তিগত তথ্য ও টেলিফোন সংলাপ হাতিয়ে নিয়েছিল বলে এর আগে খবর বের হয়েছিল। দখলদার ইসরাইলের ঘরোয়া গোয়েন্দা সংস্থা শিনবেথ এসব খবরের সত্যতা স্বীকার করেছে।

বর্ণবাদী ইসরায়েলের সংবাদমাধ্যমগুলো এর আগে খবর দিয়েছিল যে ইসরায়েলের সাবেক জ্বালানী মন্ত্রী গোনেন সেগেভ মন্ত্রিত্ব ছাড়ার পর ইরানের পক্ষে গুপ্তচরবৃত্তি করায় তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং কথিত এ অপরাধের অভিযোগে ইসরায়েলের আদালত তাকে ১১ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে। ইসরায়েলি সংবাদমাধ্যমগুলো এ ঘটনাকে ইসরায়েলি গোয়েন্দা বিভাগের জন্য বড় ধরনের পরাজয় বলে উল্লেখ করছে।

সেগেভ ২০১২ সালে নাইজেরিয়ায় ইরানির দূতাবাসের সঙ্গে যোগাযোগ করেন এবং দুই বার ইরান সফরে এসে ইরানের গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন বলে শিনবেথ দাবি করেছে। সেগেভ ইসরায়েলের জ্বালানী-বাজার ও অনেক নিরাপত্তা স্থাপনা এবং ইসরায়েলের রাজনৈতিক ও সামরিক কর্মকর্তাদের সঙ্গে সম্পর্কিত অনেক ভবন সম্পর্কে ইরানকে তথ্য দিয়েছেন বলে অভিযোগ করা হয়েছে।

এই ঘটনার পর ইহুদ বারাকের টেলিফোন হ্যাক হওয়ার খবর ইসরাইলি গোয়েন্দা বিভাগের দুর্বলতা আবারও স্পষ্ট করল।

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত