মালয়েশিয়ায় এক দিকে বৈধতার গুঞ্জন, অন্যদিকে গ্রেফতার ১০৭ প্রবাসী

মালয়েশিয়ার পাইকারি বাজার সেলাংগার প্রদেশের সেলাইয়াং (পাচার বরোং) আবারো ব্যাপক ধরপাকড় অভিযানে আটক করা হয়েছে বাংলাদেশি সহ বিভিন্ন দেশের ১৫০ জনকে। আটককৃতদের মধ্যে যাচাই-বাছাই শেষে ১০৭ জনকে গ্ৰেফতার করে সেদেশের ইমিগ্ৰেশন। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে কতজন বাংলাদেশী আছে তা জানা যায়নি। আজ শুক্রবার সকালে স্বল্প দিনের ভিতরে তৃতীয় দফা অভিযান চলে সেখানে। সেলাংগার প্রদেশের ঐ মার্কেটটি বিভিন্ন দেশের অভিবাসীদের দ্বারা পরিচালিত হয় এবং মালয়েশিয়ার প্রত্যন্ত অঞ্চলে ঐ মার্কেট থেকে মালামাল ক্রয় করে বিভিন্ন বিদেশিদের দোকানে বিক্রি হয়ে থাকে।

ব্যাপক ধরপাকড় অভিযানের মধ্যেই আশার আলো দেখা মিললো মালয়েশিয়ার সাবাহ প্রদেশে। অবৈধভাবে অবস্থান করা বিদেশি শ্রমিকদের মধ্যে ইন্দোনেশিয়া ও ফিলিপাইনের নাগরিকদের বৈধ হওয়ার সুযোগ দিলেও নেই বাংলাদেশ সহ অন্যান্য দেশের নাম। অবৈধ দুই দেশের অভিবাসীদের বৈধ হওয়া শুরু হয়েছে ১লা এপ্রিল থেকে। শেষ হবে আগামী ৩০ শেখ সেপ্টেম্বর ২০১৯। স্বল্প মূল্য অবৈধদের বৈধ হওয়া়ার সুযোগ দেওয়ার কারণে অবৈধ অভিবাসীরা এই সুযোগ গ্রহণ করবেন বলে সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন সাবা প্রদেশের মন্ত্রী।

গতছরের ৩১ আগস্ট মালয়েশিয়ার স্বাধীনতা দিবসের প্রথম প্রহর থেকে ব্যাপক ধরপাকড় অভিযান শুরুু করে অভিবাসন বিভাগ। গ্রেফতার করা হয় হাজার হাজার অবৈধ অভিবাসীদের। চলতি বছরেই গ্রেফতার করা হয় প্রায় ১৪ হাজার বিভিন্ন দেশের প্রবাসীদের। যার মধ্য বাংলাদেশি রয়েছে সাড়ে তিন হাজারের মতো।

এদিকে মালয়েশিয়ার সাবাহ প্রদেশের অবৈধ অভিবাসীদের বৈধ হওয়ার সুযোগ থেকে বাংলাদেশের নাম না থাকায় ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে বৈধ এবং অবৈধ অভিবাসীদের মধ্যে। কেন বাংলাদেশের নাম নেই তা নিয়ে চলছে বিশ্লেষণ। একাধিক সূত্র জানিয়েছে সাবা প্রদেশের পর মালয়েশিয়া জুড়ে চলতে পারে অবৈধদের বৈধ হওয়ার সুযোগ। এবারের অবৈধদের বৈধ হওয়ার প্রকল্পের কিছু কিছু সেক্টরকে উন্মুক্ত করতে পারে মালয়েশিয়া সরকার। সূত্রটি জানিয়েছে, যারা গতবার বৈধ হওয়ার জন্য ফিঙ্গারপ্রিন্ট এবং প্রতারণার শিকার হয়েছিল তাদের জন্য খোলা হতে পারে বৈধতার সুযোগ।

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত