এফ আর টাওয়ারের ১৯ থেকে ২৩ তলা অবৈধ: রাজউক-বুয়েটের তদন্ত কমিটি

রাজধানীর বনানীতে আগুন লাগা এফ আর টাওয়ারের নকশা একটিই, যেটিতে ১৮ তলা পর্যন্ত অনুমোদন রয়েছে। ১৯ থেকে ২৩তলা পর্যন্ত অবৈধ ও অনুমোদনের কোনও নকশা পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছে বুয়েট ও রাজউকের সমন্বয়ে গঠিত বিশেষজ্ঞ তদন্ত ক‌মি‌টি।

তদন্ত কমিটি বলছে, এই ভবন ভাঙা লাগবে না। কিছু সংস্কার করে তারপর ব্যবহারের অনুমোদন দেওয়া যেতে পারে।

তদন্ত কমিটি সদস্য ও বুয়েটের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মেহেদী আহমেদ আনসারী বলেন, ‘আমাদের ফাইন্ডিং এর ওপর আমরা সুপারিশ দিয়েছি। ১৯ থেকে ২৩ তলার কোনও বৈধতা নেই। তবে ভবটি অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত হলেও ভাঙতে হবে না। সংস্কারের জন্য ৫ মাস সময় দেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে। ’

কেবল ১৯ তেকে ২৩ তলার অবৈধ অংশ নয়, আরও কিছু ত্রুটি পাওয়া গেছে উল্লেখ করে ড. মেহেদী আহমেদ আনসারী বলেন, ‘ভবনটির একটিমাত্র নকশা পেয়েছি। ভবনটির মোট ১৮ তলা অনুমোদন রয়েছে। নকশা হলো মাটি থেকে দুই তলা ও উপরে ১৮ তলা। ২৩ তলার কোনও নকশা পাওয়া যায়নি। গত ২ এপ্রিল আমরা তদন্ত প্রতিবেদন হস্তান্তর করেছি। বর্তমানে এটি অফিসিয়ালি রাজউকের কাছে রয়েছে।’

ফায়ার ইলেক্ট্রিকাল ও সংস্কারের কিছু কাজ করতে হবে উল্লেখ করে ড. মেহেদী আহমেদ আনসারী আরও বলেন, ‘আমরা ভবনে আরও বেশি কিছু ত্রুটি-বিচ্যুতি পেয়েছি। এজন্য সুপারিশে ৫ মাস সময় বেঁধে দিয়েছি। এরমধ্যে তারা যা যা করার তা সংস্কার করে তারপর ভবনটি ব্যবহার করতে পারবে।’

ভবন ভাঙা লাগবে না উল্লেখ করে ড. মেহেদী আহমেদ আনসারী বলেন, ‘ভাঙার কোনও প্রশ্নই আসে না। তবে, কিছু কাজ করতে হবে।’

২৮ মার্চ এফ আর টাওয়ারে আগুন লাগে। এতে ২৬ জন মারা যান।

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত