কল করে অ্যাকাউন্ট থেকে অর্থ হাতিয়ে নেয়ার নয়া কৌশল ‘ভিশিং’!

বেশ জনপ্রিয় হচ্ছে ইন্টারনেট ও মোবাইল ব্যাংকিং। সেইসঙ্গে তৎপরতা বাড়ছে সাইবার অপরাধীদের। দেশ-বিদেশের অনেকেই এটিএম কার্ড কিংবা মোবাইল সিম কার্ড নিয়ে অনেক হয়রানির শিকার হয়েছেন। এখন ইন্টারনেট বা মোবাইল ব্যাংকিং সিস্টেম থেকে অর্থ হাতিয়ে নিতে অরাধীরা ‘ভিশিং’ আকারে নতুন স্ক্যাম ছড়িয়ে দিচ্ছে। সাইবার অপরাধীরা প্রতারণার গোটা প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে একটা কলের মাধ্যমে এবং আক্রান্তরা কিছু বুঝে ওঠার আগেই তার অর্থ হাওয়া হয়ে যায়। তাই এই নতুন ব্যাংকিং স্ক্যাম সম্পর্কে সংক্ষেপে কিছু ধারণা দেয়া যাক।

১. যে ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট রয়েছে আপনার, সেখান থেকেই আসা একটি কলের মাধ্যমে আপনাকে ফাঁদে ফেলার প্রক্রিয়াটি শুরু হবে।

২. এই কলটি যে যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছ থেকেই এসেছে তা নিশ্চিত করতে আপনার নাম, জন্মতারিখ কিংবা মোবাইল নম্বর অনায়াসে বলতে তারা।

৩. সাধারণত এমন নম্বর থেকে কল আসবে যেটাকে কোনো ল্যান্ডলাইন নম্বর বলেই মনে হবে।

৪. সাধারণত কল দিয়েই আপনার কার্ড ব্লক হয়ে যাবে বা এমন কোনো তথ্য দিয়ে আপনাকে ভড়কে দেবে ওই প্রান্ত থেকে।

৫. প্রতারক আপনাকে ক্রেডিট কার্ডের রিওয়ার্ড পয়েন্ট প্রদানের কথা বলে প্রলুব্ধ করবে।

৬. আলাপচারিতা এগিয়ে নিতে প্রতারক আপনার কাস্টমার আইডি বা ডেবিট/ক্রেডিট কার্ডের বিস্তারিত জানতে চাইবে।

৭. এর মধ্যে তার কাছে আপনার কোনো অনুরোধ থাকলে সেই অজুহাতে কৌশলে আপনার ব্যাংকের কোনো তথ্য জানতে চাইবে সে।

৮. এই সার্ভিস ভেরিফাই করতে প্রতারক আপনার ফোনে আসা ওটিপি জানতে চাইবে।

৯. গোটা প্রক্রিয়ার নাম ভিশিং। মূলত আপনার অনলাইন ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ছিনতাই করে অর্থ লুটে নেয়া হয়।

১০. অধিকাংশ ক্ষেত্রেই লুটে নেয়া অর্থ বিভিন্ন দেশের কিংবা দেশের অভ্যন্তরেই ছোটখাটো অ্যাকাউন্টে পাঠিয়ে দেয়া হয়, যাতে করে সহজে এর সন্ধান না মেলে।

১১. মনে রাখবেন, ব্যাংকের কেউ কখনোই আপনার ব্যক্তিগত তথ্য কলের মাধ্যমে চাইবে না। যদি তা হয়েই থাকে তবে তাদের কোনো তথ্য না দিয়ে ওই ব্যাংকের সঙ্গে যোগাযোগ করুন।
সূত্র: গ্যাজেট স্নো

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত