পাথর ছুঁড়ে হত্যার আইন, ব্রুনাই ছেড়েছে সমকামীরা

তেল সমৃদ্ধ দেশ ব্রুনাই ২০১৩ সালে ঘোষণা দেয়, সেখানে ইসলামের আইন কঠোরভাবে পালন করা হবে। বিশেষ করে সমকামীরা সেই ঘোষণার পর ব্রুনাই ছেড়ে অন্যত্র চলে যেতে থাকেন। তবে সমকামীদের অনেকেই সেখানে থেকে যান। তারা ভেবেছিলেন এ ধরনের কঠোর অবস্থানে ব্রুনাই কখনোই যাবে না। কিন্তু তাদের সেই ধারণা ভুল প্রমাণ হয়েছে।

সিএনএন এর এক প্রতিবেদনে কয়েকজন সমকামীর সাক্ষাৎকার তুলে ধরা হয়েছে, যারা ২০১৩ সালের ওই ঘোষণার পর ব্রুনাই ছেড়ে চলে গেছেন। ব্যক্তিগত গোপনীয়তার স্বার্থে তাদের সবারই নাম গোপন রেখেছে সিএনএন।

তাদের একজন বলেন, ওই ঘোষণা সত্যিই ভীতিকর ছিল। আমি ভেবেছিলাম, সমকামী হিসেবে আমাকে কেউই এখানে গ্রহণ করবে না। এমনকি আমার পরিবারও আমাকে মেনে না নিয়ে ধর্মের বিধিনিষেধের কথা শোনাবে। অন্যথায় তারা আমাকে পাথর নিক্ষেপ করে মেরে ফেলবে। এসব ভেবে আমি সেখান থেকে পালিয়ে চলে আসি।

তিনি আরো বলেন, এটা একেবারেই অমানবিক শাস্তি। এ ধরনের নির্যাতন কোনো মানুষই সহ্য করতে পারে না। কেবল সমকামী হওয়ার কারণে এ ধরনের সাজা কাউকে দেয়া ঠিক নয়। আরেকজন বলেন, সেখানে কেবল সমকামীদের ক্ষেত্রেই সমস্যা নয়। অন্যরাও সেখানে শান্তিতে বসবাস করতে পারে না। সেখানে নারীরা প্রতিনিয়ত হয়রানির শিকার। বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কের জেরে ওই জুটিকে পাথর নিক্ষেপ করে মেরে ফেলা হবে।

তিনি আরো বলেন, আমরা কয়েকজন সমকামী পরিচিত ছিলাম। আমার বাঁচার উপায় খুঁজছিলাম। সে ক্ষেত্রে ব্রুনাই ছেড়ে অন্যত্র চলে আসার বিকল্প খুঁজে পাইনি।

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত