সিনেটর মাথায় ‘ডিম ভাঙ্গা’ সেই কিশোরের পাশে দাঁড়ালেন অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী

গত শুক্রবার নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে বন্দুকধারীদের এলোপাতাড়ি গুলিতে ৫০ জন নিহত হন। আহত হয়েছেন অন্তত ৪৮ জন। এই সন্ত্রাসী হামলার সময় আল নূর মসজিদে নামাজ পড়তে যাচ্ছিলেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সদস্যরা। তারা মসজিদে ঢুকার কিছুক্ষণ আগে এক পথচারীর কাছ থেকে খবর পেয়ে ফিরে আসেন। ফলে অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে যান ক্রিকেটাররা। এ ঘটনায় বাংলাদেশের তিনজনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে।

এ ঘটনায় সিনেটর ফ্রেজার অ্যানিং মুসলিমবিদ্বেষী মন্তব্য করায় তার মাথায় ডিম ভাঙেন উইল কনোলি নামের এক কিশোর। এ ঘটনার ভিডিও ছড়িয়ে পরায় ১৭ বছর বয়সী কিশোর কনোলি ‘অনলাইন হিরো’ হিসেবে সারা বিশ্বে আলোচনায় এসেছে।

ঘটনার পরপরেই সিনেটরের মাথায় ডিম নিক্ষেপের পর সিনেটর তাকে চর-থাপ্পড় দেন। পরবর্তীতে সিনেটরের অনুসারীরা বালকটিকে ধরে ফেলেন। এবার সেই ডিম বালকের পাশে দাঁড়িয়েছে দেশটির প্রধানমন্ত্রী।

অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন বলে মনে করেন ডিম নিক্ষেপকারী বালককে চড়-থাপ্পর দেওয়ার কারণে মুসলিম বিদ্বেষী সিনেটরকে অভিযুক্ত করা উচিত। স্থানীয় সময় রবিবার (১৭ মার্চ) এক অনুষ্ঠানে ওই তরুণের পক্ষ নিয়ে সাংবাদিকদের এমন মন্তব্য করেন তিনি।

বিষয়টি নিয়ে বার্তা সংস্থা এপির খবরে বলা হয়েছে, ওই কিশোরের পক্ষ নিয়ে সাংবাদিকদের প্রধানমন্ত্রী মরিসন বলেন, ‘ফ্রেজার অ্যানিংয়ের বিরুদ্ধে সব ধরনের আইনি ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।’

পুলিশের এক বিবৃতিতে বলা হয়ছে, অনলাইনে নিজেকে ‘এগ বয়’ (ডিম বালক) পরিচয়দানকারী ওই কিশোর সিনেটরের মাথায় ডিম নিক্ষেপের পর সিনেটর তাকে চর-থাপ্পড় দেন। পরবর্তীতে সিনেটরের অনুসারীরা বালকটিকে ধরে ফেলেন।

এর আগে ক্রাইস্টচার্চ হামলার পেছনে মুসলিম অভিবাসনকে দায়ী করে প্রশ্ন রাখেন সিনেটর অ্যানিং বলেন, ‘মুসলিম অভিবাসন ও সহিংসতা যে অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িত, ক্রাইস্টচার্চ হামলার পরও কি কেউ তা অস্বীকার করতে পারবে?’

পাঠকের মতামত