নিউজিল্যান্ডে মসজিদে হামলা: ৭টি গুলির পরও অলৌকিকভাবে বেঁচে যান বাবা-মেয়ে

হাসপাতালে আশঙ্কাজনক অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে ঘটে যাওয়া জঙ্গি হামলায় আহত জর্ডানের নাগরিক ওয়াসিম আলী শাতি ও তার শিশু কন্যা। শনিবার (১৬ মার্চ) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট করা একটি ভিডিওতে নিজের এবং নিজের সন্তানের জন্য সকলের কাছে দোয়া চান গুলিবিদ্ধ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি এই জর্ডানের নাগরিক।

ফেসবুকে এক মার্কিন নাগরিক সাদিক হোসেন জাভেদ রিজভীর একটি পোস্ট থেকে জানা যায়, জর্দানের নাগরিক ওয়াসিম আলী শাতি পাঁচ বছর আগে স্বপরিবারে নিউজিল্যান্ডে আসেন উন্নত জীবণের খোঁজে। পেশায় তিনি একজন নাপিত। শুক্রবারের নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে ঘটে যাওয়া জঙ্গি হামলায় আহত হন ওয়াসিম আলী শাতি ও তার শিশু কন্যা। হামলাকারী ওয়াসিমকে ৪ বার এবং তার শিশু কন্যাকে ৩ বার গুলি করে। এরপরও ভাগ্যজোরে বেঁচে যান এই পিতা ও তার কন্যা। শনিবার হাসপাতালের বেড থেকেই সকলের কাছে নিজের ও কন্যার জন্য দোয়া চান তিনি।

ভিডিওতে তিনি বলেন, ‘প্রাণে বেঁচে যাওয়ার জন্য মহান সৃষ্টিকর্তাকে ধন্যবাদ। আপনারা সবাই আমার মেয়ের জন্য দোয়া করবেন, সে যেন দ্রুত সুস্থ হয়ে ওঠে। সৃষ্টিকর্তা আপনাদের সকলের মঙ্গল করুন’।

উল্লেখ্য, শুক্রবারের নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে চালানো হামলায় নিহত হন ৪৯ জন। রাস্তায় ও মসজিদের ভেতরে নামাজরত অবস্থায় নির্বিচারে গুলিতে আল নূর মসজিদে ৪১ জন এবং লিনউডে ৭ জন নিহত হন। হাসপাতালে মারা যান আরও একজন। এমনকি গুলি করার সময় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লাইভে ছিলেন হামলাকারী। ১৭ মিনিট ধরে ওই হামলার লাইভ ভিডিও প্রচারিত হয়। হামলাকারী ক্যামেরাটা তার মাথার সঙ্গে বেঁধে রেখেছিলেন। তার অস্ত্রগুলোর ওপরে সাদা রঙে কিছু লেখাও ছিল।

পাঠকের মতামত