মুসলিমদের দায়ী করা হয় ‘টিভি রেটিং’ আর ‘হাততালি’ পেতে : গৌতম গম্ভীর

একদিন আগেই নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে বন্দুকধারীর হামলায় নিহত হয়েছেন ৪৯ জন। আল নূর মসজিদে সংঘটিত এই ঘটনায় নিহতদের সবাই মুসলিম; যারা নামাজ পড়ার জন্য সেখানে গিয়েছিলেন। মাত্র ৩ মিনিটের ব্যবধানে সেখানে পৌঁছায় প্রাণে বেঁচে যান বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। এই নৃশংস ঘটনায় গোটা বিশ্বে যখন নিন্দার ঝড় উঠেছে, সেখানে কিছু মানুষ ব্যস্ত রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিলে!

মানুষের জীবন নিয়ে রাজনীতি করা পছন্দ করেননি ভারতের সাবেক ওপেনার গৌতম গম্ভীর। বিভিন্ন সময় রাষ্ট্রীয় এবং আন্তর্জাতিক ঘটনায় সরব হওয়া সাবেক এই ক্রিকেটার টুইটারে লিখেছেন, ‘ক্রাইস্টচার্চে এই হামলার জন্য আমরা এবং আমাদের একটি বড় অংশ দায়ী। সোশ্যাল মিডিয়ায় সংখ্যাগুরুদের হাততালি পেতে আর মিডিয়ার রেটিং বাড়ানোর জন্য আমরা সবসময় মুসলিমদের অত্যাচারী হিসেবে তুলে ধরি!’

ক্রাইস্টচার্চে হামলার পর ইতোপূর্বে মুসলিম জঙ্গিদের দ্বারা সংঘটিত বিভিন্ন নৃশংস হামলাকে দায়ী করছে একটি পক্ষ। আরেক পক্ষ ইহুদি-খ্রিস্টান বিদ্বেষের ধুয়া তুলে রাজনৈতিক ফায়দা নেওয়ার চেষ্টা করছে। খুব কম মানুষই বলছে, ক্রাইস্টচার্চে ৪৯জন মানুষ নিহত হয়েছেন। তারা যে ধর্মেরই হোন, তাদের বড় পরিচয় মানুষ। গৌতম গম্ভীরের শেষ কথাটায় এই কথাটাই বড় হয়ে উঠেছে, ‘আমার কাছে ধর্মনিরপেক্ষতাই হলো আসল গণতন্ত্র।’

পাঠকের মতামত