এরদোয়ানকে বিয়ের দাওয়াত দিয়ে আসলেন ওজিল

মেসুত ওজিলকে নিয়ে সমালোচনায় মেতে উঠেছিলেন জার্মানরা। অপরাধ একটাই, রাশিয়া বিশ্বকাপ চলাকালীন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইপ এরদোয়ানের সঙ্গে ছবি তুলেছেন আর্সেনাল মিডফিল্ডার। বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে যাওয়ার পেছনে এই ছবিটিকেও দায়ী করা হয় জার্মানির সংবাদমাধ্যমে।

বেশিদিন এই অপবাদ সহ্য করতে পারেননি ওজিল। শেষপর্যন্ত ত্যক্ত-বিরক্ত হয়ে বিশ্বকাপের পরই জার্মানি জাতীয় দল থেকে অবসর নিয়ে নেন তারকা এই ফুটবলার। তবে এত কিছুও এরদোয়ানের সঙ্গে ওজিলের সম্পর্ক খারাপ করতে পারেনি। নিজের বিয়েতে তুরস্কের আলোচিত এই প্রেসিডেন্টকে নিমন্ত্রণ জানিয়েছেন ওজিল।

সম্প্রতি ইস্তান্বুলের আতাতুর্ক বিমানবন্দরে এরদোয়োনের সঙ্গে দেখা করেছেন ওজিল। মূলত নিজের বিয়েতে এরদোয়ানকে নিমন্ত্রণ জানাতেই বাগদত্তা আমিন গুলসেকে নিয়ে সেখানে গিয়েছিলেন ওজিল। একটি ছবিতে দেখা যায়, এরদোয়ানের হাতে নিমন্ত্রণপত্র তুলে দিচ্ছেন জার্মানির সাবেক এই ‍ফুটবলার।

চলতি বছরের জানুয়ারিতে মিস তুর্কি আমিন গুলসের সঙ্গে আংটি বদল করেন ওজিল। তবে তুরস্কের এই অভিনেত্রী ও মডেলের সঙ্গে ওজিলের জানাশোনা কয়েক বছরের। পরিচয়ের পর লম্বা সময় ধরে চুটিয়ে প্রেম করেছেন দুজন। এবার বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারকা এই জুটি।

যদিও জানুয়ারিতে গুজব ছড়িয়েছিল, আমিন গুলসেকে বিয়ে করে ফেলেছেন ‍ওজিল। অবশ্য এমন ভাবার কারণও ছিল। একটি ছবি পোস্ট করে ওজিল ক্যাপশনে লিখেছিলেন, ‘সৃষ্টিকর্তার অনুমতিক্রমে সারা জীবনের জন্য।’ সবাই তখন ধরেই নিয়েছিল বিয়ে হয়ে গেছে ‍ওজিল-গুলসের। কিন্তু বিয়ে নয়, ওই সময় বাগদান হয় তাদের।

২০১৪ সালে মিস তুর্কি খেতাব জেতা গুলসের সঙ্গে ওজিলের দারুণ মিল। জার্মানিতে জন্ম নেওয়া ওজিল এই দেশটির হয়েই খেলেছেন। কিন্তু সে তুর্কি বংশোদ্ভূত জার্মান ফুটবলার। গ্ল্যামার গার্ল গুলসের বেলাতেও তাই। তার জন্ম সুইডেনে। আর কাকতালীয়ভাবে গুলসেও তুর্কি বংশোদ্ভূত।

পাঠকের মতামত