৮০ ভাগ রোগী চিকিৎসার অভাবে মারা যাচ্ছে

প্রতি বছর গড়ে ৩৫-৪০ হাজার রোগী কিডনি বিকল হয়ে মারা যান। কিডনি বিকল রোগীদের নিয়মিত ডায়ালাইসিস কিংবা কিডনি প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে বেঁচে থাকতে হয়।ডায়ালাইসিস ব্যয়বহুল ও কিডনি প্রতিস্থাপনে আইনি জটিলতায় ডোনারপ্রাপ্তি সংকটে শতকরা ৮০ ভাগ কিডনি বিকল রোগীকে সুচিকিৎসার অভাবে মরতে হচ্ছে।

সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে বিশেষায়িত কিডনি হাসপাতাল, প্রশিক্ষিত চিকিৎসক, নার্স ও সহযোগী কর্মচারী এবং অত্যাধুনিক ডায়ালাইসিস ইউনিটের অভাবে বহু কিডনি রোগী প্রতিবেশী দেশ ভারতে পাড়ি জমাচ্ছেন। তবে আশার খবর হলো, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে দেশের প্রতিটি জেলায় অর্থাৎ ৬৪ জেলায় ১০ শয্যা করে একটি বিশেষায়িত কিডনি ডায়ালাইসিস ইউনিট খোলার চেষ্টা চলছে। এছাড়া কিডনি রোগ আগাম প্রতিরোধে দেশের ১৬ হাজার কমিউনিটি ক্লিনিককে কাজে লাগিয়ে রোগীদের রক্তসহ একাধিক পরীক্ষা বিনামূল্যে করে কিডনি ঝুঁকি শনাক্তের চিন্তাভাবনা করছে সরকার।

বৃহস্পতিবার বিশ্ব কিডনি দিবস। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য ‘সুস্থ কিডনি সবার জন্য সর্বত্র’। দিবসটি উপলক্ষে বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল দিনব্যাপী বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা, আলোচনা সভা, বিনামূল্যে কিডনি পরীক্ষাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করে।বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের মিল্টন হলে বাংলাদেশ রেনাল অ্যাসোসিয়েশন, কিডনি ফাউন্ডেশন অব বাংলাদেশ ও কিডনি অ্যাওয়ারনেস অ্যান্ড মনিটরিং সোসাইটির (ক্যাম্পাস) উদ্যোগে এক সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান। এছাড়া বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ভিসি অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন ও খ্যাতনামা কিডনি বিশেষজ্ঞরা উপস্থিত থাকবেন।

পাঠকের মতামত