ফিক্সড ডিপোজিটের বই চু’রি করে টাকা তোলার চেষ্টা, নারী আ’ট’ক

প্রকাশিত: ফেব্রু ২, ২০২১ / ১১:৫৫অপরাহ্ণ
ফিক্সড ডিপোজিটের বই চু’রি করে টাকা তোলার চেষ্টা, নারী আ’ট’ক

বরিশাল বিভাগীয় ডাকঘরের প্রধান কার্যালয় থেকে গ্রাহকের ফিক্সড ডিপোজিটের বই চু’রি করে টাকা তোলার চেষ্টার ঘটনায় এক নারীকে আ’ট’ক করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার বিকেলে ডাকঘর কর্তৃপক্ষ বই চো’র’কে আ’ট’ক করে থানা পুলিশকে খবর দিলে কোতোয়ালী মডেল থানার এসআই রফিকুল ইসলাম এসে অ’ভি’যু’ক্ত’কে আ’ট’ক করেন।

ভারপ্রাপ্ত পোস্টমাস্টার জয়নুল আবেদীন খান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ঐ নারী চু’রি করা বই দিয়ে টাকা উত্তোলন করার চে’ষ্টা করছিলেন। এই কাজে তার বোনের মেয়েকেও ব্যবহার করেন। কিন্তু টাকা তুলে নেওয়ার আগেই আ’ট’ক করে পুলিশে সো’পর্দ করা হয়েছে।

বরিশাল মেট্রোপলিটনের কোতোয়ালী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নুরুল ইসলাম জানান, বই চু’রি’র অ’ভি’যো’গে প্রকৃত বইয়ের মালিক বা’দী হয়ে একজনের বি’রু’দ্ধে মা’ম’লা দায়ের করেছেন। গ্রে’ফ’তা’র’কৃ’ত’কে বুধবার আদালতে সো’পর্দ করা হবে।

মা’ম’লা সূত্রে জানা গেছে, ২৬ জানুয়ারি বরিশাল বিভাগীয় ডাকঘরের প্রধান কার্যালয় থেকে মদিনা আক্তার মিমের ফিক্সড ডিপোজিটের তিন লাখ টাকার বই (নম্বর এফডি-১৩২৬৯১) চু’রি করে নিয়ে যান ঝালকাঠি জেলার নলছিটি উপজেলার দপদপিয়া ইউনিয়নের বাসিন্দা ঝরণা বেগম। এদিকে ডাকঘর কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব অ’ব’হে’লায় ঐদিন বই চু’রি’র ঘটনা ঘটে বলে দাবি করেন মদিনা আক্তার। মঙ্গলবার চু’রি যাওয়া বই নিয়ে টাকা তোলার চে’ষ্টা করেন ঝরণা বেগম (৩২) ও তার বোনের মেয়ে সোহাগী আক্তার শ্রাবনী। এসময় ডাকঘরের কর্মচারীরা ঝরণা বেগমকে আ’ট’ক করে থানায় খবর দেন। থানা পুলিশ এসে আ’ট’ক করে দু’জনকে নিয়ে যায়।

তবে ঝরণা বেগমের বোনের মেয়েকে চু’রির কাজে ব্যবহার করলেও সে জানতো না আসলে তিনি কি করছেন। তার খালা তাকে বই জমা দিতে বলায় সে জমা দেয়। এ কারণে তাকে মা’ম’লার আ’সা’মি করা হয়নি বলে জানান মা’ম’লার বাদী মদিনা আক্তার মিম।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন