Feb 10, 2019 / 11:16pm

মা ক্যানসারে আক্রান্ত, আকাশছোঁয়া দামে ছেলেকে দলে ভেড়ালো কেকেআর

আইপিএল নিলামে ‘ক্যারিবিয়ান দৈত্য’কে তুলে নিল কলকাতা নাইটরাইডার্স। টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ফাইনালে অবিশ্বাস্য চার-ছক্কা হাঁকিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের হাতে তিনি তুলে দিয়েছিলেন বিশ্বকাপ ট্রফি। তিনি কার্লোস ব্র্যাথওয়েট। তাঁকে পেতে ঝাঁপিয়েছিল কেকেআর। তাঁর দাম ছিল ৭৫ লক্ষ টাকা। নিলামে শাহরুখ খানের দল ব্র্যাথওয়েটকে তুলে নিল আকাশছোঁয়া অর্থের বিনিময়ে। কত দামে কেনা হল ব্র্যাথওয়েটকে? ৫ কোটি টাকার বিনিময়ে ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান অলরাউন্ডার এলেন কলকাতায়। তিনি হয়ে গেলেন নতুন নাইট।

২০১১ সালে ঘরোয়া ক্রিকেটে বার্বেডোজের হয়ে একের পর এক নজরকাড়া পারফরম্যান্স করেন ছ’ফিট চার ইঞ্চির ক্যারিবিয়ান অলরাউন্ডার। যার মধ্যে ত্রিনিদাদ ও টোব্যাগোর বিরুদ্ধে তাঁর সাত উইকেটের বোলিং স্পেল নিয়ে হইচই পড়ে গিয়েছিল। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ওয়ান ডে ও টি টোয়েন্টি সিরিজে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলে কার্যত ‘অটোমেটিক চয়েস’ হিসাবে প্রথমবার দলে প্রবেশ করেন ব্র্যাথওয়েট। জীবনের প্রথম আন্তর্জাতিক সিরিজ খেলতে ঢাকায় পৌঁছেই মা জয়েসলিনের ফোন পেলেন ব্র্যাথওয়েট। ছেলেকে জয়েসলিন জানান যে, কাঁধের নীচে ব্যথায় কাতর তিনি। মা’কে চিকিৎসার পরামর্শ নেওয়ার কথা বলেন ব্র্যাথওয়েট।

কিন্তু সিরিজ চলাকালীন ব্রেথওয়েট যে খবরটা পেলেন, সেটার জন্য হয়তো তিনি মানসিকভাবে তৈরি ছিলেন না। বার্বেডোজ থেকে ফোনে মা তাঁকে জানালেন যে, স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত তিনি। মুহূর্তের মধ্যে ব্র্যাথওয়েটের জগত বদলে গিয়েছিল। দেশে ফেরার পর তাঁর একমাত্র ধ্যান-জ্ঞান মা’র চিকিৎসা। কেমোথেরাপির যন্ত্রণায় মা’র মুখ বিকৃত হয়ে যাওয়া ভুলতে পারেন না ব্র্যাথওয়েট। তবু জয়েসলিন উৎসাহ জুগিয়ে গিয়েছেন ছেলেকে। ব্র্যাথওয়েট একবার বলেছিলেন, ‘‘মা’র ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার খবর শুনে কাঁদতাম। খুব দুশ্চিন্তা হতো। তবে আমার চেয়ে মা মানসিকভাবে অনেক শক্তপোক্ত। ওইরকম সময়েও আমার সঙ্গে হেসে কথা বলতেন। ক্রিকেট খেলায় উৎসাহ দিতেন।’’

মা’র যন্ত্রণা ভাগ করে নেওয়ার জন্য ব্র্যাথওয়েট বেছে নিয়েছিলেন ক্রিকেট মাঠকেই। কেমোথেরাপির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় জয়েসলিনের চুল উঠে গিয়েছিল। ব্র্যাথওয়েটও নিজের মাথা কামিয়ে মাঠে নেমেছিলেন। পরে সেই ছবি মা’কে পাঠিয়ে দিয়েছিলেন। সহমর্মিতার এক অভিনব দৃষ্টান্ত রাখেন ব্র্যাথওয়েট। সেই ব্র্যাথওয়েট এবার আইপিএল-এ খেলবেন কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে।
কুমিল্লার লাকসামে বাকপ্রতিবন্ধী পুত্রবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে শ্বশুর ও দেবরকে আটক করেছে পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে রোববার (১০ ফেব্রুয়ারি) উপজেলার বাকই দক্ষিণ ইউনিয়নের কোয়ার গ্রামে।

আটককৃতরা ওই গ্রামের মৃত. ফজর আলীর ছেলে সফি উল্যাহ (৫০) ও তার ছেলে পরান হোসেন (২০)। ধর্ষিতা গৃহবধূর স্বামী প্রায় গত দেড় বছর যাবত প্রবাসে রয়েছে। ধর্ষিতা গৃহবধূ ২ সন্তানের জননী।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার বাকই দক্ষিণ ইউনিয়নের কোয়ার গ্রামের এক প্রবাসীর বাকপ্রতিবন্ধি স্ত্রীকে র্দীঘদিন যাবত তার শ্বশুর ধর্ষণ করে আসছিলো। এতে ওই প্রতিবন্ধী গৃহবধূ ৭ মাসের অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। ধর্ষিতা গৃহবধূর স্বামী প্রায় গত দুই বছর যাবৎ প্রবাসে রয়েছে।

গতকাল এ বিষয়টি জানাজানি হলে স্থানীয়রা লাকসাম থানা পুলিশকে খবর দেয়। সংবাদ পেয়ে থানা পুলিশের এস.আই কামাল হোসেন ঘটনাস্থল থেকে ধর্ষক সফি উল্যাহ ও তার ছেলে পরান হোসেনকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। এর আগেও সফিউল্লার বিরুদ্ধে একাধিক বিয়ে এবং নারী কেলেঙ্কারীর অভিযোগ রয়েছে বলে স্থানীয়রা জানান।

লাকসাম থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মনোজ কুমার দে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

কমেছে ওমানি রিয়াল রেট

817740

একলাফে বেড়ে গেলো সৌদি রিয়াল রেট

817737

কলসি ভর্তি সোনার আশায় শেষ ২০ লাখ টাকা

ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী কোনো বক্তব্য না করার জন্য অনুরোধ করা হলো।