গুগল ম্যাপে দেখতে পাবেন না যেসব জায়গা

পৃথিবীর বিস্তীর্ণ ভূমিতে এমন অনেক জায়গা আছে যার ঠিকানা নেই গুগলের কাছেও। সবজান্তা গুগল সব জানলেও এসব জায়গা সমন্ধে জানে না কিছুই। আসুন দেখে নেই এমন কোন জায়গাগুলো আছে যার হদিস জানে না গুগলও।

১. ন্যাটোর বিমানঘাঁটি: সামরিক জোট ন্যাটোর একটি বিমানঘাঁটি আছে জার্মানিতে। গিয়েলেনকির্চেন নামের এ জায়গায়টি মাইক্রোসফটের বিংয়ে ব্লক করা নেই। তবে গুগল ম্যাপে ওই জায়গাটি পিক্সেল করে দেখানো হয়।

২. ন্যাশনাল সিকিউরিটি ব্যুরো: চীনের জাতীয় নিরাপত্তা ব্যুরোর সদর দপ্তরটিও গুগল ম্যাপে চাইলেও আপনি বের করতে পারবেন না। তাইওয়ানে অবস্থিত এ জায়গায় চীনের কয়েকটি গোয়েন্দা সংস্থার কার্যালয়ও আছে।

৩. লোস ডোলোরেস: স্পেনের লোস ডোলোরেসের হ্যালিপোয়েরতো ডি কার্টাগেনা নামের জায়গাটিও চাইলেই আপনি গুগল ম্যাপে পাবেন না। এই জায়গা সম্পর্কে তেমন কোনো তথ্যও খুব একটা জানা নেই কারও। গুগলের স্ট্রিট ভিউয়ে খুঁজলেও পাওয়া যায় না এর অবস্থান।

৪. রোজেজ: লোস ডোলোরেসের মতো স্পেনের আর একটি জায়গাও গুগল ম্যাপে পাওয়া যায় না। অনুমান করা হয়, এ জায়গা থেকে মার্কিন বিমানবাহিনীর ৮৭৫তম আধুনিক বিমানটি নিয়ন্ত্রণ করা হয়। এখান থেকে ওই বিমানে বিভিন্ন সতর্কবার্তাও পাঠানো হয়। স্পেনের রোজেজ জায়গাটি গুগল ম্যাপে পাওয়া যায় না।

৫. ইসরায়েল: আপনি চাইলেও পুরো ইসরায়েল গুগল ম্যাপে দেখতে পাবেন না। জুম করলে মনে হবে কিছু ভবন কিন্তু আসলে তা নয়।

৬. হাডসপেথ কাউন্টি: টেক্সাসের একটি অংশ, যার নাম হাডসপেথ কাউন্টি সেখানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও মেক্সিকোর সীমান্ত এলাকা আছে। এই সীমান্তের প্রায় ১৫ কিলোমিটার দূরে মেক্সিকোর সিউদাদ জুয়ারেজ এলাকাটি গুগল ম্যাপে বিকৃত করে রাখা আছে।

৭. ভলক্যাল বিমানঘাঁটি: নেদারল্যান্ডসের ভলক্যাল বিমানঘাঁটিটি খুঁজলেও নাকি গুগল ম্যাপে পাওয়া যায় না। মার্কিন বিভিন্ন গোপন নথি প্রকাশ করে হইচই ফেলে দেওয়া সাড়া জাগানো ওয়েবসাইট উইকিলিকসের অভিযোগ, এই বিমানঘাঁটিতে স্নায়ুযুদ্ধের সময়কার ২২টি পারমাণবিক বোমা লুকিয়ে রেখেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

পাঠকের নির্বাচিত আরও

ঢাকার চকবাজারে ভয়াবহ আগুন, দগ্ধ-আহত ৫০

পাঠকের মতামত