কাতারের নামকরা প্রেসিডেন্ট মসজিদে বাংলাদেশি খতিব

কাতারের প্রেসিডেন্ট প্রাসাদ মসজিদে প্রতি জুমায় খুতবা দেন একজন বাংলাদেশি খতিব। বাংলাদেশের জন্য এটি গৌরব ও আনন্দের বিষয়। একজন বাংলাদেশি হয়েও কীভাবে এত গুরুত্বপূর্ণ অবস্থানে যেত পারলেন, তা নিয়ে পাঠকের কৌতূহলে ভাঙাতে আমাদের আজকের আয়োজন।

গত বুধবার (০৯ জানুয়ারি) ইস্ট-ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ সেন্টারে এসেছিলেন বাংলাদেশের গর্বিত এই সন্তান। মাগরিবের নামাজে সুমুধুর কণ্ঠে তিনি মিডিয়া হাউজের মুসুল্লিদের মন-মানস আপ্লুত করেন তিনি। এরপর সন্ধ্যায় তার সঙ্গে খানিক সময়ের মুগ্ধকর খোশগল্প পর্ব। বিভিন্ন বিষয়-আশয়ে আলোচনা। বাংলাদেশের এই কৃতি সন্তানের নাম হাফেজ কারি সাইফুল ইসলাম। তার সাফল্যের শুরু ২০০৫ সালে। সে বছর ‘দুবাই হলি কুরআন এ্যাওয়ার্ড’-এ দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছিলেন তিনি।

এরপর ২০১০ সালে আসেও আরো বড় সাফল্য। জর্ডানে ৬০টি দেশের সম্মলিত তাফসিরুল কোরআন প্রতিযোগিতায় ১ম স্থান অধিকার করে তিনি কৃতিত্বের সাক্ষর রাখেন। তখনও তিনি পড়াশোনা করছিলেন দেশের একটি স্বনামধন্য কওমি মাদরাসায়। এরপর দাওরা হাদিস (মাস্টার্স সমমান) সম্পন্ন করার পাশাপাশি ইন্টারমিডিয়েট পাশ করে কাতার ইউনিভার্সিটিতে স্কলারশিপ লাভ করেন। ২০১২ থেকে চার বছর মেয়াদে সেখানে অনার্স সম্পন্ন করেন।

কীভাবে তিনি কাতার প্রেসিডেন্ট প্রাসাদ মসজিদে খুতবা প্রদানের সৌভাগ্য অর্জন করেন, সে প্রসঙ্গ খুবই চমকপ্রদ ও ঈর্ষণীয়। তার সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ২০০৪ সাল থেকে কাতারের রাজপরিবারের সঙ্গে তার চমৎকার সম্পর্ক। সে বছর ‘দুবাই হলি কুরআন অ্যাওয়ার্ড’ জয়ের পর থেকে রাজপরিবারের সদস্য আবদুল আজিজ বিন খালেদ আবদুল্লাহ আল-থানি তাকে নিয়মিত কাতারে আমন্ত্রণ করতেন। প্রতি বছর আসা-যাওয়ার টিকিট ও আনুসাঙ্গিক খরচসহ দুইবার তাকে কাতার নিয়ে যাওয়া হতো। প্রথমবার যেতেন মাত্র এক সপ্তাহের আনন্দভ্রমণে। মাদরাসায় অর্ধবার্ষিক পরীক্ষা দিয়েই ছুটি কাটাতে ছুটে যেতেন কাতারে।

দ্বিতীয়বার যেতেন রমজান-মৌসুমে। সেখানে রাজপরিবারের বিভিন্ন সদস্যদের তিনি তারাবির নামাজে ইমামতি করতেন। তারপর তাদের সঙ্গে সৌদিতে গিয়ে ওমরা পালন করে ঈদের দিন দেশে ফিরে আসতেন। তার এমন দারুাণ ও সুখময় আসা-যাওয়া ২০১২ পর্যন্ত অব্যাহত থাকে।

প্রিয় পাঠক, আপনার মূল্যবান শেয়ার / মতামতের এর জন্য ধন্যবাদ।

পাঠকের মতামত