দ্রুত ওজন বাড়াবেন যেসব উপায়ে

প্রকাশিত: জানু ২৩, ২০২১ / ১০:৩৮পূর্বাহ্ণ
দ্রুত ওজন বাড়াবেন যেসব উপায়ে

‘স্বাস্থ্যই সকল সুখের মূল’ কথাটা আমরা সবথেকে বেশি ব্যবহার করি নিজেদের স্থুলতা ঢাকতে। ডায়াবেটিসের মতো স্থুলতা বহুরোগের অন্যতম কারণ। তাই স্বাস্থ্যসচেতন হয়ে আমরা সিদ্ধান্ত নেই ওজন কমানোর জন্য। খাবারে একপ্রকার নিষেধাজ্ঞার পাশাপাশি নিয়মিত দৌড়-ঝাঁপ, কত কিছুই না করা হয় ওজন কমাতে! তবে ওজন কমানো যেমন প্রয়োজন তেমনি ওজন বাড়ানোও। আমাদের সবারই ওজনের ক্ষেত্রে ভারসাম্যপূর্ণ থাকা প্রয়োজন। কিন্তু ওজন বাড়ানোর মতো ওজন কমানোও বেশ ঝক্কির! তবে কিছু নির্দিষ্ট কিছু পদ্ধতি ও খাবার আছে যা অনুসরণ করে খাবার খেলে তাড়াতাড়ি ওজন বাড়াতে পারবেন।

৥ ওজন বাড়াতে হলে খেতে হবে এমন ভাবনাটা অনেকটাই অযৌক্তিক। যা খুশি তা-ই খেলে উপকারের চেয়ে অপকারই বেশি। সেক্ষেত্রে আপনার খাবার গ্রহণেও হতে হবে কার্যকরী, খেতে হবে ভারসাম্যপূর্ণ পুষ্টিকর খাবার। প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট ও ফ্যাটের যথাযথ সমন্বয় থাকতে হবে খাবারে। মাংসপেশি গঠন আর ওজন বাড়ানোর জন্য পর্যাপ্ত প্রোটিনের চাহিদা মেটানো গুরুত্বপূর্ণ। নানা ধরনের বাদাম, দুধ ও দুধজাত খাবার শরীরকে প্রয়োজনীয় শক্তি জোগাবে।তাড়াতাড়ি ওজন বাড়াতে প্রত্যেকদিন চর্বি যুক্ত মাছ খান। আরও ভালো ফল পেতে মাছ, মাখন এবং অলিভ অয়েলে ভেজে নিন।

৥ ওজন বাড়াতে রোজকার ডায়েটে আলু রাখতে ভুলবেন না। আলুতে প্রচুর পরিমানে প্রোটিন, ফাইবার এবং ভিটামিন সি থাকে। এছাড়া ওজন বাড়ানোর জন্য সহজ এবং স্বাস্থ্যকর উপায় হল পিনাট বাটার। খাবার তালিকায় রাখতে পারেন প্রোটিন, ভিটামিন ডি, স্বাস্থ্যকর কোলেস্টেরলযুক্ত উপাদান হল ডিম। ওজন বাড়ানোর জন্য রোজ ব্রেকফাস্টে চিজ খাওয়া হলেও ফল ভালো আসবে।

৥ রোজ ১০০ গ্রাম করে বাদাম খান। ১০০ গ্রাম বাদামে ৫০০ থেকে ৬০০ ক্যালোরি থাকে। এছাড়া ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড, প্রোটিন, ভিটামিন ই এবং ফাইবার থাকে। ওজন বাড়ানোর জন্য বাদাম খুবই উপযোগী। এছাড়া ঘরোয়া উপায়ে সবথেকে তাড়াতাড়ি ওজন বাড়ানোর উপযোগী খাবার হল কলা। প্রত্যেকদিনের ডায়েটে কলা রাখুন। ওজন বাড়বে হু হু করে।

৥ ধূমপান যত বেশি করবেন আপনার ক্ষুধা না লাগার সমস্যা তত বাড়তেই থাকবে। অবশ্য জগতে অতিরিক্ত ওজনের মোটাসোটা ধূমপায়ীও প্রচুর আছেন এবং হাড় জিরজিরে রোগা-পটকা ধূমপায়ীও প্রচুর আছেন। কিন্তু কথাটা হলো ধূমপান কারও স্বাস্থ্যের জন্যই ভালো না। আর ধূমপান ছেড়ে দেওয়ার পর সবারই প্রথম যে উপকার হয় তা হলো ক্ষুধা বাড়তে থাকা। এতে আপনার ওজন বেড়ে আপনার স্বাস্থ্য আরো ভালো রাখতে সাহায্য করবে।

৥ রুটি একটি ভীষণ পুষ্টিকর খাবার। প্রতিদিন সকালের নাস্তায় রুটি রাখলে সারাদিন শরীরে প্রচুর শক্তি পাওয়া যায়। ১০০ গ্রাম রুটিতে আছে ১৭০ ক্যালোরি, ১.৫৫ গ্রাম ফ্যাট, ৩২.৫ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট ও ৫.৮৪ গ্রাম প্রোটিন। তাই ওজন বাড়ানোর জন্য নিয়মিত রুটি খাওয়া উচিৎ। এছাড়া আপনার প্লেটে রাখতে পারেন ভাতও। এতে শর্করার পাশাপাশি কিছুটা আমিষও পাওয়া যাবে। ফলে শরীরের ওজন বাড়ানোর জন্য প্রতিদিন কম করেও দুবেলা ভাত খাওয়া যেতে পারে।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন