ধ’র্ষ’ণের মা’ম’লা’য় খানকার ইমাম গ্রে’ফ’তার

প্রকাশিত: জানু ৮, ২০২১ / ১১:৪৭অপরাহ্ণ
ধ’র্ষ’ণের মা’ম’লা’য় খানকার ইমাম গ্রে’ফ’তার

তাবিজ আনতে গিয়ে খানকার মসজিদের ইমামের হাতে এক না’রী ধ’র্ষ’ণে’র শি’কা’র হয়েছেন বলে অভি’যো’গ করা হয়েছে। শুধু তাই নয়, এ ঘটনা কাউকে বলে দিলে কু’ফ’রির মাধ্যমে বা’ন মে’রে তাকে হ’ত্যা করা হবে বলেও হু’ম’কি দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার রাতে এসব অভি’যো’গে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর থানায় মাওলানা সিরাজুল ইসলামের (৫০) নামে মা’ম’লা হয়েছে। আ’সা’মি’কে গ্রে’ফ’তা’র করেছে পু’লি’শ।

সিরাজুল ইসলাম নবীনগর উপজেলার শ্রীরামপুর গ্রামের আবুল উলায়া খানকার প্রধান পরিচালক ও সেখানের মসজিদের ইমাম।

মা’ম’লা সূত্রে জানা যায়, গত দুই মাস আগে আবুল উলায়া খানকা শরীফে ওই না’রী তার ৫ বছরের শি’শুকন্যার জন্য তাবিজ আনতে যান। সেখানে গেলে দরজা ব’ন্ধ করে ‘ধ’র্ষ’ণ’ ক’রেন সিরাজুল ইসলাম। পরে ওই না’রী’কে হু’ম’কি দেওয়া হয় যে, এ বিষয়ে কারো কাছে কিছু ব’ললে কিংবা অভি’যো’গ করলে তাকে ও তার শি’শুকে কু’ফ’রির মাধ্যমে বা’ন মে’রে হ’ত্যা করা হবে। সে ভ’য়ে ধ’র্ষ’ণের বিষয়টি এতোদিন গো’প’ন রে’খে’ছি’লেন ওই নারী।

মা’ম’লা’য় আরো বলা হয়, ধ’র্ষ’ণের কারণে অ’ন্তঃ’স’ত্ত্বা হয়ে পড়ায় স্বামীর বাড়ির লোকজন বিষয়টি টে’র পে’য়ে যায়। পরে ওই নারী ধ’র্ষ’ণে’র বিষয়টি প্রকাশ করলে স্থানীয়ভাবে মী’মাং’সা’র জন্য সর্দা’র’রা নবীনগর পৌর এলাকার ভোলাচং উচ্চ বিদ্যালয়ে মাঠে বসে। পুলিশ খবর পেয়ে সিরাজুল ইসলামকে বৃহস্পতিবার রাতে গ্রে’ফ’তা’র করে থা’নায় নি’য়ে আসে।

নবীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আমিনুর রশিদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আ’সা’মি’কে মা’ম’লার ভিত্তিতে গ্রে’ফ’তা’র করা হয়েছে।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন