জোড়া মাথা নিয়ে শিশুর জন্ম, ঢাকায় স্থানান্তর

প্রকাশিত: জানু ৬, ২০২১ / ০৫:০০অপরাহ্ণ
জোড়া মাথা নিয়ে শিশুর জন্ম, ঢাকায় স্থানান্তর

মাগুরায় দুই মাথা নিয়ে একটি শিশু জন্ম নিয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে স্থানীয় একটি ক্লিনিকে শিশুটির জন্ম হয়। পরে শিশুটিকে মাগুরা ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। উন্নত চিকিৎসার জন্য সেখান থেকে আজ বুধবার দুপুরে শিশুটিকে ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়েছে বলে জানিয়েছে চিকিৎসকরা।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, মাগুরা সদর উপজেলার জগদল গ্রামের দিনমজুর পলাশ হোসেন তাঁর স্ত্রী সোনালি বেগমকে গতকাল শহরের ‘মা প্রাইভেট হাসপাতালে’ ভর্তি করেন। সেখানেই বিকেল সাড়ে ৪টায় শিশুটির জন্ম হয়। জন্মের পর দেখা যায়, শিশুটির দুটি মাথা রয়েছে।

দিনমজুর পলাশ হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, ‘শহরের ভায়না মোড়ের হাজী সাহেব সড়কে গতকাল বিকেলে মা প্রাইভেট হাসপাতালের চিকিৎসক মাসুদুল হক আমার স্ত্রীর সিজার করেন। এর আগে আল্ট্রাসনোগ্রাফির রিপোর্টে এসেছিল সোনালি বেগমের যমজ বাচ্চা হবে। কিন্তু জন্মের পর দেখা গেল, একটিই শিশু, কিন্তু মাথা দুটি। পরে বিকেলে জেলা হাসপাতালে নিয়ে যাই।’

‘আমরা তো গরিব মানুষ। এই ধরনের চিকিৎসা করানোর সামর্থ্য আমাদের নেই। আমি শিশুটির জন্য সমাজের বিত্তবানদের সাহায্য চাই’, যোগ করেন দিনমজুর পলাশ। আজ বুধবার দুপুরে শিশুটিকে তার মা-বাবার সঙ্গে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

এ ব্যাপারে মাগুরা জগদল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, ‘দুপুরে পাঁচ হাজার টাকা দিয়ে অ্যাম্বুলেন্সে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে উদ্দেশে পাঠানো হয়েছে।’ তিনি আরো জানান, শিশুটির পরিবার আর্থিকভাবে অসচ্ছল বলে মাগুরা-১ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সাইফুজ্জামান শিখর তাঁর উন্নত চিকিৎসার যাবতীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিয়েছেন।

শিশুটির পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়, জেলা হাসপাতালে ভর্তির প্রায় চার ঘণ্টা পর রাত সোয়া ৯টার দিকে সদর হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডের ভারপ্রাপ্ত কনসালটেন্ট ডা. জয়ন্ত কুণ্ডু শিশুটিকে দেখতে আসেন এবং প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দেন।

এ সময় চিকিৎসক শিশুটির পরিবারের সদস্যদের জানান, দুটি মাথা বাদে শিশুটির দুটি হাত, দুটি পাসহ অনান্য অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ স্বাভাবিক রয়েছে। এটি সার্জারি বিভাগের বিষয়, তাই ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গেলেই শিশুটির রাষ্ট্রীয় খরচে উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা হবে।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন