কাতারের সঙ্গে বিরোধ মিটিয়ে উপসাগরীয় দেশগুলোর চুক্তি

প্রকাশিত: জানু ৬, ২০২১ / ১২:০২অপরাহ্ণ
কাতারের সঙ্গে বিরোধ মিটিয়ে উপসাগরীয় দেশগুলোর চুক্তি

কাতারের সঙ্গে বিরোধ মিটিয়ে সংহতি চুক্তি করেছে সৌদি আরবসহ উপসাগরীয় দেশগুলো। সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান একে ‘সংহতি ও স্থিতিশীলতার’ চুক্তি বলে মন্তব্য করেছেন। উপসাগরীয় দেশগুলোর জোট গালফ কো–অপারেশন কাউন্সিলের (জিসিসি) সম্মেলনে মঙ্গলবার (৫ জানুয়ারি) তিন বছরের এই চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে।

সৌদি আরব ও কাতার প্রায় সাড়ে তিন বছর দ্বন্দ্বের পর সোমবার পরস্পরের আকাশ, স্থল ও সমুদ্র সীমান্ত খুলে দেওয়ার কথা জানায়। পরে সৌদি আরবের আল–উলা শহরে মঙ্গলবার আয়োজিত জিসিসি সম্মেলনে এ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

জিসিসি সম্মেলনে যোগ দিতে মঙ্গলবার সৌদি আরবের আল-উলা শহরে যান কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল-থানি। তাকে আলিঙ্গন করে সৌদি যুবরাজ সালমান যে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানিয়েছেন তা দুই দেশের বৈরিতা অবসানেরই স্পষ্ট ইঙ্গিত। কিন্তু ভবিষ্যৎই বলে দিবে দেশগুলো তাদের বৈরিতা ভুলে পরস্পরের সমৃদ্ধি ও উন্নয়নে কতটুকু কাজ করতে পারে!

বিশেষ করে সৌদি যুবরাজ যখন ইরানের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে এমন কথা বলেন, ‘আমাদের অঞ্চলের উন্নতি ও চারপাশে থাকা চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবিলা করার জন্য ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টা জরুরি। বিশেষত ইরান সরকারের পারমাণবিক ও ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচি এবং নাশকতা ও ধ্বংসের জন্য তাদের পরিকল্পনা থেকে উদ্ভূত হুমকি মোকাবিলায় একতা জরুরি প্রয়োজন।’যেখানে নিষেধাজ্ঞার সময়ে ইরান কাতারের দিকে সর্বাত্মক সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছিল!

উপসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলোর এই সমঝোতাকে বড় মাইলফলক হিসেবে দেখা হচ্ছে। সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান বলেছেন, কাতারের সঙ্গে তিন বছরের ঝগড়া ভুলে উপসাগরীয় সহযোগিতা কাউন্সিলের সদস্যরা ‘সংহতি এবং স্থিতিশীলতা’ চুক্তি করতে সম্মত হন। সৌদি যুবরাজ এই চুক্তিতে পৌঁছার জন্য মধ্যস্থতা করায় যুক্তরাষ্ট্র ও কুয়েতকে ধন্যবাদ জানান।

আঞ্চলিক অস্থিতিশীলতা তৈরি ও সন্ত্রাসবাদ উসকে দেওয়ার অভিযোগে ২০১৭ সালের জুনে কাতারের সঙ্গে সব ধরনের কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করার ঘোষণা দেয় সৌদি আরব। সৌদির সঙ্গে যোগ দেয় বাহরাইন, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও মিসর।

সম্পর্ক ছিন্নের পাশাপাশি স্থল, নৌ ও আকাশপথে যোগাযোগও বন্ধ করে দেয় তারা। এই দেশগুলো দোহার বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোকে সমর্থন করার পাশাপাশি ইরান–ঘনিষ্ঠতার অভিযোগ তোলে। তবে কাতার শুরু থেকেই এসব অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে আসছে।

মঙ্গলবারের জিসিসি সম্মেলনে উপসাগরীয় আরব দেশগুলোর নেতারা একটি নথিতে সই করেছেন । তাৎক্ষণিকভাবে এ নথির বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানা যায়নি। তবে এক প্রতিবেদনে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা জানিয়েছে, সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, সৌদি আরব ও এর তিন আরব মিত্র দেশ কাতারের সঙ্গে সম্পর্ক আবার পুরোপুরি চালু করতে রাজি হয়েছে।

চুক্তির বিষয়ে বিস্তারিত কিছু না জানিয়ে সৌদি যুবরাজ সালমান বলেছেন, “এই সব প্রচেষ্টা… আল-উলা চুক্তিতে পৌঁছাতে সহায়তা করেছে, যেটি আশীর্বাদপুষ্ট এই সম্মেলনে সই হবে এবং যা উপসাগরীয়, আরব এবং ইসলামি এক্য ও স্থিতিশীলতা নিশ্চিত করবে।”

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন