ভি’ক্ষার চাল ভা’জতে গিয়ে অ’গ্নি’দ’গ্ধ, বাঁ’চার আ’কুতি রাব্বানির

প্রকাশিত: জানু ১, ২০২১ / ১১:২৫অপরাহ্ণ
ভি’ক্ষার চাল ভা’জতে গিয়ে অ’গ্নি’দ’গ্ধ, বাঁ’চার আ’কুতি রাব্বানির

ভি’ক্ষা করে জমানো চাল ভাজি করতে গিয়ে রাব্বানি বেগম (৮) নামের এক শিশু অ’গ্নি’দ’গ্ধ হয়ে এখন মৃ’ত্যু’র সঙ্গে ল’ড়া’ই করছে। অর্থের অ’ভা’বে চিকিৎসা ক’রাতে পারছে না তার ভি’ক্ষুক মা কুলসুম বেগম।

রাব্বানির বাড়ি পটুয়াখালী জেলার বাউফল উপজেলার কেশবপুর ইউনিয়নের মমিনপুর গ্রামে। বাবার নাম মোক্তার আলী মৃধা। ৪ বছর আগে বাবা মা’রা যাওয়ার পর তিন কন্যাসন্তান মৌসুমি, রাব্বানি ও জামিলাকে নিয়ে সংসার চালাতে মা কুলসুম বেগম নি’রু’পা’য় হয়ে ভি’ক্ষা’র পথ বে’ছে নেন। ভি’ক্ষা’র টাকায় বিয়ে দেয়া হয়েছে বড় মেয়ে মৌসুমিকে। বড় মেয়ের স্বামীও প্র’তি’ব’ন্ধী।

গত ২৬ ডিসেম্বর সকালে প্রতিদিনের মতো ৫ বছরের কন্যাশিশু জামিলাকে নিয়ে ভি’ক্ষা করতে বে’রিয়ে যান রাব্বানির মা কুলসুম বেগম। বড় বোন মৌসুমিও ঘরে ছিলেন না। ঘরে কোনো খাবার ছিল না।

ক্ষু’ধা’র তা’ড়’নায় ভি’ক্ষা করে জমানো চাল ভাজি করে খাওয়ার চেষ্টা করে রাব্বানী। সে ঘর থেকে চাল এনে ভা’জতে গি’য়ে চু’লা’র আ’গুনে পু’ড়ে দ’গ্ধ হয়। পরে ডাকচি’ৎ’কার শুনে বাড়ির লোকজন উ’দ্ধার করে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করেন।

রাব্বানির মা কুলসুম বেগম জানান, রাব্বানির বাবা মোক্তার আলী খেয়ার নৌকা চালাতেন। অল্প আয়ে তাদের সংসার কোনোরকম চলে যাচ্ছিল। ৪ বছর আগে সংসারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তিটি মা’রা যান। এরপর ভি’ক্ষা করে সংসার চা’লানো ছাড়া কোনো উপায় ছিল না। হ’ঠাৎ করে মেয়েটি অ’গ্নি’দ’গ্ধ হওয়ায় এখন কূ’ল’কি’না’রা পাচ্ছেন না তিনি।

বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক এএসএম সায়েম বলেন, শ’রী’রে’র ৭০ শতাংশ দ’গ্ধ হয়েছে শিশুটির। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে পাঠানো হয়েছে। তার চিকিৎসার জন্য প্রায় ৪-৫ লাখ টাকার প্রয়োজন। দ’রি’দ্র পরিবারের পক্ষে যা ব’হন করা অ’স’ম্ভব। তাই সমাজের বিত্তবানদের সহায়তা চেয়েছেন রাব্বানির ভি’ক্ষু’ক মা।

সাহায্য পাঠাতে ই’চ্ছু’ক যারা তাদের বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বেচ্ছাসেবক আতিকুর রহমান আরিফ তার মোবাইলে (০১৭৫৬৩১২০৫০) যোগাযোগের অ’নু’রো’ধ করেছেন।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন