দুধের সঙ্গে যেসব খাবার খেলে মারাত্মক ক্ষতি

প্রকাশিত: ডিসে ৩১, ২০২০ / ০২:১২অপরাহ্ণ
দুধের সঙ্গে যেসব খাবার খেলে মারাত্মক ক্ষতি

শরীরকে পুষ্টি দিতে দুধের সঙ্গে যদি ভুল খাবার খাওয়া হয় তাহলে হিতে বিপরীত হতে পারে। কোন খাবারের সঙ্গে কোন খাবার খাওয়া যায় তা নিয়ে অনেকেরই ধ্যান ধারণা কম। তাই, খাওয়ার পরই গা ম্যাচ ম্যাচ থেকে শুরু করে বমি, পায়খানা, গ্যাস, অম্বলে ভুগতে হয়।

আমরা অনেকেই দুধের সঙ্গে মিশিয়ে খাই। কখনও চকলেট, কখনও ফল, কিন্তু আদতে কী সেই খাবার স্বাস্থ্যসম্মত? এক্ষেত্রে শুনতে হবে আয়ুর্বেদিকদের পরামর্শ। তাদের মকতে দুধের সঙ্গে খাবার মোটেও মেশানো যায় না। যে কোনও খাবারের সঙ্গে দুধ খেলেই শরীর খারাপ হতে পারে।

কলা, চেরি দুধের সঙ্গে মিশিয়ে কখনই খাবেন না বলে পরামর্শ দিচ্ছেন আয়ুর্বেদিকরা।

পাশাপাশি দুধের সঙ্গে কমলা, লেবু, তেঁতুল, আমলা, গ্রিন আপেল, তাল, আনারস টক জাতীয় খাবার খাওয়া যাবে না।

আয়ুর্বেদিকদের মতে ডিম, মাংস, মাছ, খিচুড়ি, বিনস, মুলা খাওয়া একেবারে উচিত নয়। এতে প্রচুর পরিমাণে অম্বল ও গ্যাস হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

তবে মধু ও গুড় মিশিয়ে দুধ খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য সবচেয়ে ভালো।

দইয়ের সঙ্গে দুধ মেশালে তা কেমিক্যাল রিএকশ্যান করে দুধ কে দই-এ পরিনত করে। এই প্রক্রিয়া আমাদের পেটেও যখন এই দুটি জিনিস একত্রে সেবন করি এরফলে পাচন তন্ত্র খারাপ হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়।

অনেক সময় ত্বকে সাদা দাগ দেখা যায়। দুধ খাওয়ার আগে বা পরে মাছ মাংস খেলে এরকম হয়ে থাকে। আর এছাড়া প্রবল অ্যসিডের সুযোগ থাকে । দুটি খাদ্যে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন থাকে যা পাচন তন্ত্রে চাপ পরে যার ফলে পরবর্তীতে সমস্যা দেখা যায়।

আপনি যদি সালাদে পেয়াজ ব্যবহার করেন বা খাদ্যে বেগুনের কোনো কিছু থাকে তবে সেই খাদ্য গ্রহণের দু ঘন্টা পরই দুধ খাবেন। এই দুটি এক সঙ্গে সেবন করলে ত্বকের সমস্যা দেখা দেয়।

দুধ খাওয়ার আগে বা পরে টক জাতীয় ফল বা আচার কিছু খাবেন না। সঙ্গে নোনতা জাতীয় খাবার ফাস্ট ফুড চিপস্ খাবেন না। খেতে হলে এক ঘন্টা বিরতি দিয়ে তবেই খাবেন।নাহলে কেমিক্যাল রিঅ্যাকশন হয়ে শরীরে ক্ষতি করবে।

ভারী খাবার পরে কখনো দুধ খাবেন না। দুধ নিজেই খাদ্যের সমান। তাই খাওয়ার পর আবার দুধ পান করলে শরীরের জন্য তা অতিরিক্ত হয়ে থাকে । দুধ সাধারণত পাচন করতে সময় লাগে তাই খাবার পর দুধ খেলে খাবার পাচন প্রক্রিয়া দূর্বল হয়ে পরে, অ্যাসিড হয়ে যায়, পেট ফুলে যাওয়ার মতো সমস্যা দেখা যায়।

যদি খাবারের পরই দুধ খেতে হয় তবে দুটোর মধ্যে সামঞ্জস্য করে নিন অর্থাৎ দুটি খাবারের মাত্রা অর্ধেক করে নিন। উদাহরণ হিসেবে যদি আপনি চারটি রুটি সাধারণত খেয়ে থাকেন তাহলে সেখানে দুটি রুটি খান আর দুধ খান হাফ গ্লাস।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন