অভিযোগ নিয়ে এবার মুখ খুললেন অপু বিশ্বাস

প্রকাশিত: ডিসে ৩০, ২০২০ / ০৮:৪৩অপরাহ্ণ
অভিযোগ নিয়ে এবার মুখ খুললেন অপু বিশ্বাস

আমার মায়ের ইচ্ছা ছিল আমি যেন চলচ্চিত্র প্রযোজনা করি। আমার মা প্রায়ই তাঁর এ ইচ্ছার কথা বলতেন। করোনার আবহে আমার মা চলে গেলেন না ফেরার দেশে। এরপর প্রতিনিয়ত মায়ের অপূর্ণ ইচ্ছাটা আমাকে পীড়া দিত। মনে হতো, মা বলে গেছেন; কিন্তু সেটা আমার পক্ষে করা হয়ে উঠছে না। এটা কষ্টদায়ক হয়ে উঠেছিল বেশ, তখনই আমি আবেদন করলাম প্রযোজক সমিতিতে।

বুধবার সন্ধ্যায় অপু বিশ্বাস বলেন, ‘সমিতির সদস্যপদ পেলাম। আমি সিনেমা বানাব কি না জানি না। কবে বানাব, তারও কোনো ঠিক নেই। সদস্য হয়ে রইলাম। সুযোগ-সুবিধামতো নির্মাণে আগ্রহী হব। তবে এখন আপাতত তেমন চিন্তা করছি না।

প্রযোজক সমিতিতে সদস্যপদ নেওয়ার বিষয়ে আপনি নাকি আবেদনপত্রে শাকিবকে স্বামী হিসেবে দেখিয়েছিলেন? এমন প্রশ্নের উত্তরে অপু বিশ্বাস বলেন, না এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি।

এটা কেন হবে? আমি আমার মায়ের ইচ্ছা পূরণ করার জন্যই সদস্যপদের জন্য আবেদন করেছিলাম। জাস্ট আজ পেয়েছি সদস্যপদ- এটাই হলো মূল ঘটনা। কে বলছে এসব ঘটনা?

প্রযোজক সমিতির সাধারণ সম্পাদক এমন বক্তব্য দিয়েছেন, আপনি সেটা নাকচ করছেন? এ বিষয়ে অপু বলেন, আসলে আমি বুঝতে পারছি না তো কী বলব। যারা বলেছে, যারা ছেপেছে এসব খবর, তারাই এর ভালো জবাব দিতে পারবে। আমি শুধু আপনাদের কাছে দোয়া এবং আশীর্বাদ চাই যেন আমি আমার লক্ষ্যে পৌঁছতে পারি।

ঢাকাই চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় নায়ক-নায়িকা শাকিব খান-অপু বিশ্বাস। এ দম্পতির ডিভোর্স হয়ে যাওয়ায় কেউ কারো মুখ পর্যন্ত দেখতে চান না। শাকিব খান ইতিমধ্যেই প্রযোজক হিসেবে নাম লিখিয়েছেন।

শাকিব খানের সাবেক স্ত্রী অপু বিশ্বাসকে প্রযোজক হিসেবে দেখা যায়নি। এবার তিনিও প্রযোজক হিসেবে নাম লেখালেন। ইতিমধ্যে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক পরিবেশক সমিতির সদস্যপদ লাভ করেছেন তিনি। মঙ্গলবার (২৯ ডিসেম্বর) সদস্যপদ লাভ করেন। প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের নাম রেখেছেন ‘অপু-জয় প্রোডাকশন হাউস’।

সমিতির সদস্যপদ নিতে শুরুতে অপু বিশ্বাস প্রতারণার আশ্রয় নিয়েছেন বলে খবর প্রকাশিত হয়েছে। সাবেক স্বামী শাকিব খানের নাম ব্যবহার করে বিশেষ সুবিধা নিতে চেয়েছিলেন অপু বিশ্বাস। সদস্য হওয়ার আবেদনপত্রে স্বামী হিসেবে শাকিব খানের নাম উল্লেখ করেছেন বলে জানা যায়।

বুধবার সন্ধ্যায় পরিবেশক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম বলেন, শাকিব খানের স্ত্রী হিসেবে পরিচয় দিয়ে সদস্যপদ নিয়েছিলেন অপু বিশ্বাস। যেটা নিয়মবহির্ভূত। আমরা যখন ফের দায়িত্ব পাই, তখন এই অনিয়ম দেখি। ৫-৬ দিন আগে তাঁর সদস্যপদ বাতিল করে যথানিয়মে আবেদন করতে বলি। অবশ্য তিনি পরে আবেদন করেন। আজ আমরা তাকে সদস্যপদ
দিয়েছি।

স্বামীর নামের সঙ্গে আবেদনের সম্পর্ক কী- এমন প্রশ্নের জবাবে শামসুল আলম বলেন, ‘সমিতির নিয়মে আছে, কোনো প্রযোজকের স্বামী/স্ত্রী, সন্তান এক লাখ আট হাজার টাকার সদস্যপদ মাত্র ১১ হাজার টাকায় প্রযোজক হিসেবে সদস্যপদ লাভ করতে পারবেন। আর এ জন্যই অপু বিশ্বাস এভাবে আবেদন করেছিলেন। কিন্তু শাকিব তো তাঁর স্বামী নন। ডিভোর্স হয়ে গেছে অনেক আগে, আমরা সেটা জানি।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন