আগামী নির্বাচন নিয়ে জাস্টিনের ভাবনা

প্রকাশিত: ডিসে ৩০, ২০২০ / ১২:০২পূর্বাহ্ণ
আগামী নির্বাচন নিয়ে জাস্টিনের ভাবনা

যদি বি’রো’ধী দল একান্তই তার সরকারের প্রতি অ’না’স্থা প্র’স্তাব আনে অথবা ক’রো’না মো’কা’বিলায় অ’স’ন্তু’ষ্ট হয়ে থাকে, তাতে নির্বাচনে যেতে রা’জি আছেন বলে জানালেন প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। এবং তিনি নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতও রয়েছেন।

জাতীয় সম্প্রচার মাধ্যম সিবিসি’র প্রধান রাজনৈতিক ভাষ্যকার রোজমেরি বার্টনের সঙ্গে বছর শেষের এক সাক্ষাতকারে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যদি বি’রো’ধী দল মনে করে আমরা যথা’য’থভাবে সরকার পরিচালনায় ব্য’র্থ, তবে শা’স’নভার হবে দু’রূহ, তাতে তারা নির্বাচন উ’স্কে দিক বা না দিক।’

এতে নির্বাচন আয়োজন বিষয়ে তিনি গভর্নর জেনারেল জুলি পায়েটের শর’ণা’পন্ন হবেন কিনা, এমন প্রশ্নের জবাবে ট্রুডো বলেন, সে সম্ভাবনাটি দেখা দিলেও তিনি বোঝেন ক’রো’না পরিস্থিতিতে নির্বাচন আহ্বান তার সরকারের প্রাধান্যপূর্ণ লক্ষ্য ন’য়, বরং দেশের জনগণ ক’রো’না সং’ক্র’ম’ণে’র মু’খো’মু’খিতে রয়েছে, সেটাই মু’খ্য।

ট্রুডো বলেন, ‘আমার সরকারের যা করণীয়, সেটাই আমি নিশ্চিত করে যাচ্ছি; তাই আমি কোনো ভাবনাকে পরিহার করছি না। তবে একই সময়ে আমি কোনো নির্বাচনের জন্য উ’ন্মুখ নই।’

কিন্তু এই প্রশ্নটি যখন ট্রুডোকে করা হয়েছে যে, কানাডার জনগণের মাঝে টিকাদান শেষ হলে, অর্থাৎ হেলথ কানাডার ভাষ্য মতে ২০২১ সালের সেপ্টেম্বরের মাঝে সকলে তা পেলে, তখন কি নির্বাচনে যাওয়া থেকে বি’র’ত থাকবেন? উত্তরে তিনি নিশ্চিত করে কিছু বলেননি। তথাপি গত শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে ট্রুডো বলেন, নির্বাচন নিয়ে ‘রাজনৈতিক বিবেচনা এখন তার সরকারের মুখ্য লক্ষ্য নয়। বরং কানাডার জনগণকে সর্বতো সহযোগিতা জোগানোর পাশাপাশি টিকাদান সম্পন্ন করাই সর্বাধিক অ’গ্র’গণ্য।’

একই সময়ে নির্বাচনে আগ্রহী না থাকলেও ট্রুডো বলেন, তার সরকার করোনা পরিস্থিতিতে দেশের সবুজ অর্থনৈতিক উন্নয়নে উচ্চ ‘কার্বন টেক্স’ আরোপে একাগ্র। এ বিষয়ে সিবিসি’র রোজমেরিকে বলেন, ‘আমরা জানি রাজনৈতিক দলগুলো ঐকমত পোষণ করবে না, বরং (জলবায়ু) বিষয়ে আরও বেশি অনৈক্য প্রদর্শন করবে।’ দ্য বেঙ্গলী টাইমস জানিয়েছে যে, গত ১৪ মাস ধরে বর্তমান লিবারেল সরকার দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষ’ম’তা’সীন রয়েছে। আর ক’রো’না ম’হা’মা’রি’তে তাদের পরিকল্পিত অনেক উদ্যোগই ভে’স্তে গেছে, তাতে রাজধানী অটোয়ার রাজনৈতিক গতিধারায় না’ট’কী’য় পরিবর্তন এসেছে।

এসব সত্ত্বেও ক’রো’না ম’হা’মা’রি মো’কা’বি’লায় ব্লক ক্যুইবেকুয়া, এনডিপি ও গ্রিন পার্টির সহযোগিতায় প্রধান বি’রো’ধী কনজারভেটিভ পার্টি সরকারের তু’মুল স’মা’লো’চনা করলেও তারা বৃহত্তর অর্থে সরকারের গৃহীত কো’ভি’ড-১৯ বিষয়ক ত্রাণ কর্মসূচিতে সমর্থন জুগিয়ে চলেছে। তারা তুলনামূলক কম সময়েই জাতীয় সংসদে সরকারের বিপুল ব্যয় সং’ক্রা’ন্ত বিল পাশ করেছে, যার অধিকাংশ অর্থই সাধারণ নাগরিক, ক্ষুদ্র ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও লক ডা’উনে ক্ষ’তি’গ্রস্ত খাতে ব্য’য়িত হচ্ছে।

এতে গত আগস্ট মাসে কনজারভেটিভ পার্টির দায়িত্বে অধীষ্ট এরিন ও’তুল আগেই বলেছেন তিনি নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত আছেন, আদৌ তাতে সরকারের পতন কিংবা প’ত’নে’র আহ্বান কেউ করুক বা না করুক; তবে সেটাও তার মুখ্য লক্ষ্য নয়। তার ভাষায়, ‘নির্বাচনে যাওয়ার আগে অর্থনৈতিক ও করো’না সং’ক’টে’র উত্তরণ হওয়াটা বা’ঞ্ছ’নীয়,’ সে কথা তিনি এ মাসের শুরুতে সিটিভি-কে দেয়া এক সাক্ষাতকারে জানিয়েছেন।

এদিকে সরকার গত সপ্তাহে জাতীয় সংসদের শীতকালীন ছুটিতে যাওয়ার আগে একটি নতুন বিল, তুলে ধরেছে, যেখানে ‘ইলেকশন কানাডা’-কে সাময়িক ক’রো’না প’রি’স্থি’তিতে উদ্ভূত নির্বাচন সং’ক্রা’ন্ত পদ্ধতিতে সামঞ্জস্যতা বিধানের সুযোগ দেয়া হয়েছে। যদি ওই বিলটি সংসদে পাশ হয়, তবে তা কানাডার জনগণকে তিনদিন ব্যাপী নির্বাচনে ভোট প্রদানের সুযোগ করে দেবে, যেখানে ডাকে ভোট প্রেরণসহ দীর্ঘ মেয়াদী সেবাশ্রমে বিশেষ ভোট কেন্দ্র স্থাপনের বিধান থাকবে অন্যতম।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন