অন্তরঙ্গ ছবি ভাইরাল শিক্ষক-শিক্ষিকার : বদলির সুপারিশ

প্রকাশিত: নভে ২২, ২০২০ / ১০:০৮অপরাহ্ণ
অন্তরঙ্গ ছবি ভাইরাল শিক্ষক-শিক্ষিকার : বদলির সুপারিশ

বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলার রহমতপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোক্তার হোসেন ও অন্য এক নারী প্রধান শিক্ষিকার অন্তরঙ্গ ছবি ভাইরাল হয়েছে। এ ঘটনায় তাদেরকে বরিশাল জেলার বাইরে শাস্তিমূলক বদলির নির্দেশনা নিয়েছেন জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা।

এদিকে এ ঘটনায় উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. আকবর কবীর সহকারী শিক্ষা অফিসার মো. রোমাঞ্চ আহমেদকে প্রধান করে দুই সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন। অপর তদন্তকারী হলেন সহকারী শিক্ষা অফিসার মুহাম্মদ মনীরুল হক। তাদের সাতদিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

তবে একটি সূত্রে জানিয়েছে, ইতিমধ্যেই তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগের প্রমাণ মিলছে। এ ছাড়া শিক্ষক মোক্তার হোসেনের বিরুদ্ধে বদলি বাণিজ্য, বৃত্তি বাণিজ্যসহ ৩০টির বেশি অভিযোগ প্রমাণ পাওয়া গেছে।

শিক্ষক মোক্তার হোসেন বিভিন্ন সময় প্রধান শিক্ষিকাকে ফোন করে ডেকে নিয়ে বিভিন্ন কাজের দায়িত্ব দিলে তিনি তা করে দিতেন। এভাবেই তাদের মধ্যে অন্তরঙ্গ সম্পর্ক গড়ে উঠে।

প্রধান শিক্ষিকা ওই বাসায় গেলে তাকে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। প্রধান শিক্ষিকার শর্তসাপেক্ষে মোক্তার হোসেন তার প্রথম স্ত্রীকে গত ২৭ সেপ্টেম্বর নোটারির মাধ্যমে তালাক দেয় এবং ২৯ সেপ্টেম্বর নোটারির মাধ্যমে ১৫ লাখ টাকার কাবিনে তাকে বিয়ে করে।

এদিকে, বিয়ের পরও মোক্তার হোসেন প্রথম স্ত্রীর কাছে থাকায় দ্বিতীয় স্ত্রী স্বামীর অধিকার পেতে উপজেলা চেয়ারম্যান কাজী ইমদাদুল হক দুলালের কাছে মৌখিক অভিযোগ করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয় শিক্ষক মোক্তার হোসেন।

পরে বিয়ের আগে ওই শিক্ষিকাকে নিয়ে বিভিন্ন স্থানে নিয়ে তোলা অন্তরঙ্গ ছবি ফেসবুকে ছেড়ে দেওয়া হয়। শিক্ষকের মোবাইল থেকে ছবি ছবিগুলো তার ফেসবুকে ওই নারী আপলোড করে দিলেও শিক্ষক তা মুছে ফেলেন।

এরমধ্যেই ছবিগুলো মানুষজন সংরক্ষণ করে ছড়িয়ে দেয়। তবে স্থানী কয়েকজনের দাবি, ওই প্রধান শিক্ষিকাই ছবিগুলো মেসেঞ্জারে সরবার করেছেন নিজের অধিকার ফিরে পাওয়ার জন্য।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন