ঘুমের আগে যেসব খাবার খাবেন না

প্রকাশিত: নভে ১১, ২০২০ / ১২:৪৮অপরাহ্ণ
ঘুমের আগে যেসব খাবার খাবেন না

ঘুম মানুষের শরীরের সমস্ত ক্লান্তি দূর করে। শরীরকে সুস্থ সতেজ রাখতে ঘুম অত্যন্ত কার্যকরী ভূমিকা পালন করে থাকে। রাতে কমপক্ষে ছয় থেকে আট ঘণ্টা ঘুমানো জরুরি। এর কম ঘুম হলে সেটা নিদ্রাহীনতা। এই ঘুম নিয়ে অনেকেই বেশ সমস্যায় ভোগেন। রাত হলে সময় মতো বিছানায় যান ঠিকই কিন্তু ঘুম আসে না কিছুতেই।

অনেকেই ঘুমানোর জন্য ঘুমের ওষুধের আশ্রয় নিয়ে থাকেন। কিন্তু ঘুমের ওষুধের প্রতি অতিরিক্ত নির্ভরশীলতা শরীরের জন্য মারাত্মক ক্ষতির কারণ হতে পারে। সুস্থ শরীরের চাবিকাঠি হলো ঘুম। ঘুম ঠিকমতো না হলেই মেজাজ খিটখিটে, কাজে মন নেই, খেতে অনীহা। সারা দিনটাই মাটি। সমীক্ষায় দেখা গেছে, বিশ্বের মোট জনসংখ্যার প্রায় ৪৫ শতাংশ মানুষ ঘুমজনিত সমস্যায় ভোগে। অনিদ্রার ফলে ডায়াবেটিসসহ নানা রোগ দেখা দেয়। চিকিৎসকদের মতে, একজন সুস্থ মানুষের অন্তত সাত ঘণ্টা ঘুমানো উচিত। প্রতিদিন একই সময়ে ঘুমানো এবং ঘুম থেকে ওঠা উচিত। কিন্তু জানেন কি, আপনার আরামের ঘুমের শত্রু কারা? আমরা রোজ যে খাবার খাই, তার মধ্যেই লুকিয়ে রয়েছে ঘুমের সেসব শত্রু।

রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে কী খাবার খাওয়া হচ্ছে সেটা কিন্তু খুব গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, ভুল খাবার খেলে রাতের ঘুমের ব্যাঘাত ঘটতে পারে। সমীক্ষায় দেখা গেছে, বিশ্বের মোট জনসংখ্যার প্রায় ৪৫ শতাংশ মানুষ ঘুমজনিত সমস্যায় ভোগে। অনিদ্রার ফলে ডায়াবেটিসসহ নানা রোগ দেখা দেয়।

চলুন জেনে নেওয়া যাক, ঘুমের আগে কোন খাবারগুলো একদমই খাওয়া উচিত নয়। রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে কী খাবার খাওয়া হচ্ছে সেটা কিন্তু খুব গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, ভুল খাবার খেলে রাতের ঘুমের ব্যাঘাত ঘটতে পারে। আর ঘুম ভালো না হলে পরের দিন শরীর খারাপ লাগতে বাধ্য। এর তার প্রভাব পড়বে সারাদিনের কাজে। সে জন্যই রাতে কোন কোন খাবার এড়িয়ে চলা দরকার সুন্দর ঘুমের জন্য সেদিকে লক্ষ্য রাখা দরকার।

শাকসবজি, চিপস ও স্ন্যাকস

সবুজ শাকসবজিতে যেমন দেহের পুষ্টি হয়, তেমনই শাকসবজিতে থাকে প্রচুর ফাইবার যা ধীরে পরিপাক হয়, ফলে ঘুম আসতে দেরি হয়। ভাজাভুজিতে প্রচুর পরিমাণে মনোসোডিয়াম গ্লুটামেট থাকে যা ঘুমে সমস্যা তৈরি করে। চিপস, ভুট্টা, ভাজাপোড়া খাবার বা এ ধরনের বিভিন্ন খাবার বাইরে থেকে এনে খাবেন না। এতে আপনার কোনো উপকার তো হবেই না, আরও শারীরিক সমস্যা দেখা দিবে। পাশাপাশি, পাস্তা বা পিৎজা এ ধরনের খাবারগুলো কিন্তু অত্যন্ত ফ্যাটি গোত্রীয়। এটা ঘুমের সময় দেহের ওজন বাড়িয়ে দেয়। ঘুমের সময় হৃদস্পন্দন অনিয়মিত করতে পারে। ঘুমের আগে তাই এ সব না খাওয়াই ভালো।

মিষ্টি ও কফি

মিষ্টিজাতীয় খাবার ঘুমের আগে একদমই খাবেন না। আইসক্রিম, চকলেট, ক্যান্ডি বার ইত্যাদিতে ফ্যাট রয়েছে। ঘুমানোর আগে অবশ্যই ফ্যাটযুক্ত কোনো খাবার খাবেন না। আবার একবাটি দুধে কর্নফ্লেক্স ফেলে খাওয়া সকালে আদর্শ ব্রেকফাস্ট হতে পারে, কিন্তু রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে একদম নয়। অতিরিক্ত কার্বোহাইড্রেট ঘুম আসার পক্ষে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে। কফি তো বটেই, কফির মতো চকোলেটও নষ্ট করে ঘুম। কারণ ক্যাফাইনের উপস্থিতি ঘুমে বাধা দেয়। আবার ঘুমের শত্রু অ্যালকোহলও। কারণ এটা শরীরের বিএমআর বাড়িয়ে দেয়। ঝাল মরিচ এড়িয়ে যেতে হবে। এতে একদিকে আছে কার্বোহাইড্রেট, অন্যদিকে ক্যালোরি। ফলে ঘুম আসার পক্ষে অন্তরায়। তাই ঘুমের আগে এ সব না খাওয়াই ভালো।

রেড মিট

রাতে রেড মিট খাওয়া ভালো নয়। এটা বিএমআর বাড়িয়ে শরীরের তাপ বাড়িয়ে দেয়। ফলে গাঢ় ঘুম আসে না। তাছাড়া মাংস হজম হতে খুব দেরি হয়। এ জন্য রাতে মাংস খাওয়া একদমই ঠিক নয়। আবার, শাকসবজিতে যেমন দেহের পুষ্টি হয়, তেমনই তাতে থাকে প্রচুর ফাইবার যা ধীরে পরিপাক হয়, ফলে ঘুম আসতে দেরি হয়। বিএমআর রেট বাড়িয়ে শরীরের তাপ বাড়িয়ে দেয়। ফলে গাঢ় ঘুম আসে না। পাস্তা অত্যন্ত ফ্যাটি খাবার। ঘুমের সময় দেহের ওজন বাড়িয়ে দেয়। ঘুমের আগে ঘরে তৈরি হাল্কা খাবার খাওয়াই ভালো৷ কারণ ঝাল বা রিচ খাবার আপনার শরীরে অস্বস্তির কারণ হতে পারে৷ খাবার খাওয়ার দু’ঘন্টা পরে তা হজম হতে শুরু করে৷ আপনি রাতে রিচ খাবার খেয়ে শুলে সারা রাত আপনার পাচনতন্ত্র খাবার হজম করার কাজ চালিয়ে যাবে৷ তাতে আপনার ঘুম ভালো হবে না৷ তাই ঘুমানোর আগে চেষ্টা করুন সহজপাচ্য খাবার খেতে৷

অ্যালকোহল ও ধূমপান

ঘুমের শত্রু অ্যালকোহলও। কারণ এটা শরীরের বিএমআর বাড়িয়ে দেয়। এতে একদিকে আছে কার্বোহাইড্রেট, অন্যদিকে ক্যালোরি। ফলে ঘুম আসার পক্ষে অন্তরায়। ঘুমানোর আগে অ্যালকোহল খেলে অনেকে ভাবেন ঘুম ভালো হয়৷ কিন্তু বিষয়টি সে রকম নয়৷ অ্যালকোহল রক্তের মাধ্যমে মস্তিষ্কে পৌঁছায়৷ এবং তার ফলে মস্তিষ্কের নার্ভ শিথিল হয়৷ এতে ঘোর এবং ঘুম আসে৷ কিন্তু সমস্যা হলো এই ঘুমে শরীরকে কোনো রকম বিশ্রাম দেয় না৷ আপনি ঘুমালেও সারারাত আপনার শরীর চেষ্টা করে যায় আপনার শরীর থেকে অ্যালকোহল বের করতে৷ তার ফলে আপনার পরদিন ঘুম ভাঙবে মাথা ব্যথা, তেষ্টা বা শারীরিক অস্বস্তি নিয়ে৷ সেই রকমই ধূমপানও ঘুমের বড় শত্রু৷ আপনি যদি ভাবেন ঘুমানোর আগে একটি সিগারেট খেলে আপনার মস্তিষ্ক রিল্যাক্স করবে এবং আপনি ঘুমোতে পারবেন তাহলে আপনি ভুল ভাবছেন৷ তামাকের নিকোটিন আমাদের ঘুমের শত্রু৷ এটি আমাদের মস্তিষ্ককে অতিরিক্ত কার্যকর করে রাখে৷ তাই যত বেশি আপনি তামাক সেবন করবেন তত বেশি আপনার ঘুম নষ্ট হবে৷

কর্নফ্লেক্স

এক বাটি দুধে কর্নফ্লেক্স ফেলে খাওয়া সকালে আদর্শ ব্রেকফাস্ট হতে পারে, কিন্তু রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে একদম নয়। অতিরিক্ত কার্বোহাইড্রেটে ঘুম আসার পক্ষে বাধা। ঘুমের শত্রু অ্যালকোহল। বিএমআর বাড়িয়ে দেয় শরীরের। একদিকে কার্বোহাইড্রেট, অন্যদিকে ক্যালোরি। ফলে ঘুম আসার পক্ষে অন্তরায়। মরিচও খাওয়া উচিত নয়। স্বাস্থ্যকর ডায়েট মেনে চলুন। ঘুমানোর এক ঘণ্টা আগে রাতের খাবার খান। ঘুমানোর সময় সাধারণত শরীরের তাপমাত্রা বেড়ে যায়। তাই ঘুমানোর কক্ষটির তাপমাত্রা ঠান্ডা রাখা উচিত। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ঘুমের ওষুধ খাবেন না।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন