আজারবাইজানকে হামাসের অভিনন্দন

প্রকাশিত: নভে ১০, ২০২০ / ০৭:৪০অপরাহ্ণ
আজারবাইজানকে হামাসের অভিনন্দন

বিরোধীয় নাগোরনো-কারাবাখ নিয়ে যু’দ্ধ’বিরতির চুক্তির পর আজারবাইজানকে অভিনন্দন জানিয়েছে ফিলিস্তিনের ইসলামি প্রতিরোধ আ’ন্দো’লন হামাস। আর্মেনিয়ার দখল থেকে বি’রো’ধীয় অঞ্চলটি মুক্ত করায় মঙ্গলবার হামাস বাকুকে অভিনন্দন জানায়।

চুক্তি অনুযায়ী আর্মেনিয়ার সঙ্গে আজারবাইজানের সংঘাত শেষ হয়েছে বলে এক ঘোষণায় জানিয়েছেন
আজেরি প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভ। তিনি জানিয়েছেন, এমন চুক্তির ফলে ওই অঞ্চলে আর্মেনিয়ার পরাজয় হয়েছে।

হামাসের মুখপাত্র আবু জুরি এক টুইটে বলেন, দখলকৃত অঞ্চল পুনরুদ্ধার ও যু’দ্ধে জয়ের কারণে আজারবাইজানকে আমরা অভিনন্দন জানাই।

তিনি বলেন, যে কোনো দখলের জন্য এটি স্বাভাবিক পরিসমাপ্তি। এ সময় তিনি আজারবাইজানকে তুর্কি সমর্থনের বিষয়টিও তুলে ধরেন।

দুই দেশের সীমান্তে ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে ব্যাপক সং’ঘর্ষ ও গো’লা’গু’লি চলে আসছিল। রাশিয়ার মধ্যস্থতায় মাঝে দুই দেশ যু’দ্ধবিরতিতে সম্মত হলেও কাজের কাজ তেমন কিছু হয়নি। দুই পক্ষের র’ক্তক্ষয়ী এ লড়াইয়ে বেসামরিক নাগরিকসহ বহু প্রাণহা’নি ঘটেছে।

দুই দেশের সংঘা’তের মূলে ওই নাগরনো-কারাবাখ অঞ্চল। এলাকাটি জাতিগত আর্মেনীয় অধ্যুষিত। সোভিয়েত ইউনিয়নের পত’নের সময় ভোটাভুটিতে অঞ্চলটি আর্মেনিয়ার সঙ্গে থাকার পক্ষে রায় দেয়।

এরপর বিষয়টি নিয়ে আজারবাইজান ও আর্মেনিয়ার মধ্যে যু’দ্ধ বেধে যায়। ১৯৯০ সালের ওই যুদ্ধে প্রায় ৩০ হাজার মানুষের প্রাণহানি ঘটে। সেই যু’দ্ধ থামে ১৯৯৪ সালের এক যু’দ্ধবিরতির মাধ্যমে।

এরপর থেকে এলাকাটি আন্তর্জাতিকভাবে আজারবাইজানের অংশ হিসেবে স্বীকৃত। কিন্তু আর্মেনীয় বিচ্ছিন্নতাবাদীদের নিয়ন্ত্রণে। তাদের সমর্থনে আর্মেনিয়ার সরকার। আন্তর্জাতিক পরাশক্তিগুলোর মধ্যস্থতায় দশকের পর দশক আলোচনা হলেও শান্তিচুক্তি অধরা থেকে গেছে।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন