বুমরা ম্যাজিকে ফাইনালে মুম্বাই ইন্ডিয়ানস

প্রকাশিত: নভে ৬, ২০২০ / ১২:৫৬পূর্বাহ্ণ
বুমরা ম্যাজিকে ফাইনালে মুম্বাই ইন্ডিয়ানস

ব্যাটে-বলে অনবদ্য পারফর্ম করল মুম্বাই ইন্ডিয়ানস। শেষ ৬ ওভারে ৯২ রান তুলল ইশান কিষান আর হার্দিক পান্ডিয়া! একেই বলে টি-টোয়েন্টি ম্যাচের আসল মেজাজ।

এরপর বোলিংয়ে বিধ্বংসী হয়ে উঠলেন ট্রেন্ট বোল্ট ও জশপ্রীত বুমরাহ। বলতে গেলে মুম্বাইয়ের পেসার জশপ্রীত বুমরাহ একাই ধসিয়ে দিলেন দিল্লি ক্যাপিটালসের ব্যাটিং।

তার বিধ্বংসী বোলিংয়েদিল্লি ক্যাপিটালসকে হারিয়ে আসরের প্রথম ফাইনালিস্ট হয়েছে মুম্বাই ইন্ডিয়ানস।

মঙ্গলবার দুবাই ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আইপিএলের প্রথম কোয়ালিফায়ারে ইশান কিশান এবং হার্দিক পান্ডিয়ার অনবদ্য ব্যাটিংয়ে ভর করে ২০০ রান সংগ্রহ করে মুম্বাই ইন্ডিয়ানস।

অথচ ১৪ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে মুম্বাই স্কোরবোর্ডে জমা করেছিল ১০৮ রান। আর ২০ ওভার শেষে দেখা গেল প্রতিপক্ষ দিল্লি ক্যাপিটালসকে পাহাড়সম ২০১ রানের টার্গেট ছুড়ে দিয়েছে তারা ।

গত ম্যাচের মতো মঙ্গলবারও ব্যর্থ হয়েছেন মুম্বাইয়ের অধিনায়ক রোহিত শর্মা।

টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে মাত্র ১ বল টেকেন রোহিত। শুরুতেই রবীচন্দ্র অশ্বিনের বলে বোল্ড হন রোহিত।

তবে তাতে মুম্বাইয়ের ইনিংসে কোনোই প্রভাব ফেলেনি। কুইন্টন ডি কক ও সূর্যকুমার যাদবের জুটি রানকে ৭৮ পর্যন্ত নিয়ে যায়। এরপর অশ্বিনের বলেই ডি কক ৪০ রান করে আউট হন।

এরপর ইশান কিষানকে সঙ্গে নিয়ে সূর্যকুমার দলীয় রান ১০০ তে নিয়ে যান। এনরিখ নর্টজের বলে আউট হওয়ার আগে সূর্যকুমার করেন ৩৮ বলে ৫১ রান।

পরের ওভারেই ফের অশ্বিনের আঘাত। রোহিত শর্মার মতোই শুন্যরানে আউট হন কায়রন পোলার্ড।

ইশান কিষানের সঙ্গী হন ক্রুনাল পান্ডিয়া।

তিনিও ইশানকে একা ফেলে মাঠ ছাড়েন ১৩ রান করেই।

এরপর ইশানের সঙ্গী হয়ে আসেন অলরাউন্ডার হার্দিক পান্ডিয়া। এরপর থেকে যা ঘটল তা অবিশ্বাস্যই বটে।

দিল্লির বোলারদের তুলোধোনো করে ২০০ রানে গিয়ে থামে মুম্বাইয়ের ইনিংস।

ইশান কিষান ৩০ বলে ৫৫ রানে অপরাজিত থাকেন। হার্দিক পান্ডিয়া মাত্র ১৪ বলে ৩৭ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে অপরাজিত থাকে।

জবাবে ২০১ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুতেই ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে দিল্লি ক্যাপিটালস। ট্রেন্ট বোল্ট ও বুমরাহ ঝড়ে কোনো রান যোগ না করেই ৩ উইকেট হারায় দিল্লি!

শুন্যরানে একে একে আউট হন পৃথ্বি শ, অজিঙ্কা রাহানে ও শিখর ধাওয়ান। ১২ রান যোগ করে অধিনায়ক স্রেয়াশ আইয়ারও আউট হন বুমরার বলে।

দলের হাল ধরেন মার্কুস স্টইনিস। ৪৬ বলে বাউন্ডারি আর ৩ ছক্কার মারে ৬৫ রান করে বুমরার বলে বোল্ড হন। এরপর এআর পাটেল ছাড়া আর কেউ মুম্বাইয়ের বোলারদের সামনে দাঁড়াতে পারেননি।

৩৩ বলে ৪২ রান করে পোলার্ডের বলে আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন পাটেল।

শেষ দিকে কাগিসো রাবাদা ১৫ রানের ইনিংস খেললেও তা পর্যাপ্ত হয়নি। ৮ উইকেটে ১৪৩ রান করতেই শেষ হয়ে যায় নির্ধারিত ২০ ওভার।

ফলে ৫৭ রানের বড় ব্যবধানে জয় নিয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করে মুম্বাই ইন্ডিয়ানস।

মুলত দিল্লির ইনিংসকে একাই ধসিয়ে দিয়েছেন জসপ্রীত বুমরা। ৪ ওভারে মাত্র ১৪ রান দিয়ে ৪ উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরার পুরস্কার পেয়েছেন তিনি।

ম্যাচ হাইলাইটস দেখুন-

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন