চরাঞ্চল পাল্টে গেছে সাংসদ বাবেলের উন্নয়নে

প্রকাশিত: অক্টো ২৯, ২০২০ / ১১:২২অপরাহ্ণ
চরাঞ্চল পাল্টে গেছে সাংসদ বাবেলের উন্নয়নে

ময়মনসিংহ-১০ (গফরগাঁও) আসনের সংসদ সদস্য ফাহমী গোলন্দাজ বাবেলের উন্নয়নমুখী রাজনীতির ছোঁয়ায় পাল্টে গেছে ব্রহ্মপুত্র নদ দ্বারা বিচ্ছিন্ন দীর্ঘ দিনের অবহেলিত জনপদ চরআলগী।

উপজেলার অন্য ইউনিয়নগুলোর মতো চরআলগীতেও এখন দীর্ঘ পাকা সড়ক, ব্রিজ-কালভার্ট ও ঘরে ঘরে বিদ্যুতের আলোয় উদ্ভাসিত। বন্যা, খরা, প্রখর রোদ্রে তপ্ত বালুর ওপর মাইলের পর মাইল হেঁটে চলার অভিজ্ঞতা চরাঞ্চলের মানুষের স্মৃতিপটে জায়গা নিয়েছে।

এখন চরের মানুষ ঘর থেকে বের হয়েই পাকা সড়ক ধরে ব্রহ্মপুত্র নদের ওপর নির্মিত দ্বিতীয় বৃহৎত্তম এলজিইডি আলতাফ গোলন্দাজ সেতু পার হয়ে দ্রুত পৌর শহরে চলে আসেন।

জানা যায়, উপজেলা সদরের অত্যন্ত কাছে হওয়া সত্বেও ১৫টি ইউনিয়নের মধ্যে ব্রহ্মপুত্র দ্বারা বিচ্ছিন্ন থাকায় চরআলগী ইউনিয়ন ছিল অত্যন্ত অবহেলিত, অনুন্নত ও পিছিয়ে পড়া জনপদ।

চরআলগীবাসী ঘরে বসে পৌর শহরের বিদ্যুতের ঝলমলে আলো দেখলেও তাদের নিজেদের ঘরে বিদ্যুৎ সংযোগের উপায় ছিল না। চরআলগীর বালুতে সবখানে পাকা সড়ক, ব্রিজ, দালানকোঠা গড়ে উঠলেও চরআলগীতে এক ইঞ্চি পাকা সড়ক ছিল না। কিন্তু এমপি বাবেল এই চিত্র পাল্টে দিয়েছেন।

পৌর শহরের প্রান্ত ঘেঁষে প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত প্রায় ৮০কোটি টাকা ব্যয়ে ৮১০মিটার দৈর্ঘ্যের আলতাফ গোলন্দাজ সেতু নির্মিত হওয়ার পর সংসদ সদস্য ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল চরআলগীর অবকাঠামো উন্নয়নে মনোনিবেশ করে একের পর এক প্রকল্প বাস্তবায়ন করেন।

চরআলগী ইউনিয়নের এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তের দূরত্ব প্রায় ২১ কিলোমিটার। বিশাল আয়তনের চরআলগীতে প্রায় ৪০ হাজার মানুষের বসবাস। তিনি চর কামারিয়া থেকে অপর প্রান্তের নাককাটা চর পর্যন্ত ২৪ কিমি পাকা সড়ক নির্মাণ করেন।

গফরগাঁও-দেওয়ানগঞ্জ ৫ কিমি সড়ক পাকাকরণ ও সংস্কারসহ বোরাখালের ওপর ৩২ লাখ টাকা ব্যয়ে ৩৬ ফুট দৈর্ঘের একটি ব্রিজ নির্মাণ, শহীদের মোড় থেকে কাঁচারীপাড়া ও কাঁচারীপাড়া থেকে মফিজ মাস্টারের বাড়ি পর্যন্ত সড়ক পাকাকরণ,

গফরগাঁও-দেওয়ানগঞ্জ সংযোগ সড়ক থেকে চর কালিবাড়ি এইচবিবি সড়ক নির্মাণ, ভূমিহীন ও নিরাশ্রয়দের জন্য আলতাফ গোলন্দাজ আশ্রয়ণ প্রকল্প বাস্তবায়ন, প্রায় কোটি টাকা ব্যয়ে চরমছলন্দ মীরাপাড়া এবতেদায়ী মাদরাসায় বন্যা আশ্রয় কেন্দ্র নির্মাণ,

দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে চরআলগী ইউনিয়নের আভ্যন্তরীণ যোগাযোগ উন্নয়নে প্রায় দুই কোটি টাকা ব্যয়ে ৬টি ছোটবড় ব্রিজ কালভাট নির্মাণ করেন।

ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে ১৭২টি কাঁচা রাস্তা নির্মাণ করে চরাঞ্চলের যোগাযোগ ব্যবস্থার চিত্র পাল্টে দিয়েছেন। এ ছাড়া প্রায় ১২০ কিমি পল্লী বিদ্যুৎ লাইনের মাধ্যমে সাড়ে ৭ হাজার পরিবারকে বিদ্যুতের আলোয় উদ্ভাসিত করেছেন।

ইউপি চেয়ারম্যান মাছুদুজ্জামান বলেন, আমার নেতা সংসদ সদস্য ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল চরআলগীবাসীর সুখ-দুঃখের চির সাথী। তাই চরআলগী বাসীর ভাগ্যোন্নয়নে তিনি নিরন্তর কাজ করছেন। নেতার উন্নয়ন রাজনীতির ছোঁয়ায় চরআলগীর অবকাঠামোর যেমন প্রভুত উন্নতি হয়েছে। তেমনি পল্লী বিদ্যুতের আলো সবার ঘরে পৌঁছে গেছে।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন