মুরাদনগরে ঘুমন্ত স্বামীকে কু’পি’য়ে হ’ত্যা, স্ত্রীর যাবজ্জীবন

প্রকাশিত: অক্টো ৬, ২০২০ / ১০:৫৪অপরাহ্ণ
মুরাদনগরে ঘুমন্ত স্বামীকে কু’পি’য়ে হ’ত্যা, স্ত্রীর যাবজ্জীবন

কুমিল্লার মুরাদনগরে ঘু’ম’ন্ত স্বামীকে নৃ’শংসভাবে কু’পি’য়ে হ’ত্যা’র ঘটনায় জুলেখা বেগম নামে এক নারীকে যাবজ্জীবন কা’রা’দ’ণ্ড দিয়েছেন আদালত।

এছাড়া ওই নারীকে ১০ হাজার টাকা জ’রি’মানা এবং অনাদায়ে আরও দুই বছরের কা’রা’দ’ণ্ড দেয়া হয়েছে। জেলার মুরাদনগরে আলোচিত আবু তাহের হ’ত্যা’র ১১ বছর পর তার স্ত্রীর বি’রু’দ্ধে এ রায় ঘোষণা করা হয়।

মঙ্গলবার দুপুরে কুমিল্লার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ দ্বিতীয় আদালতের বিচারক মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন এ রায় ঘোষণা করেন।

মা’ম’লায় রাষ্ট্রপক্ষে আইনজীবী অতিরিক্ত পিপি অ্যাডভোকেট আবুল কালাম আজাদ এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আদালত ও মা’ম’লার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, পারিবারিক ক’ল’হের জে’র ধরে ২০০৯ সালের ৪ মার্চ রাতে জেলার মুরাদনগর উপজেলার ধামঘর ইউনিয়নের কৃষ্ণপুর গ্রামের আবু তাহেরকে ঘু’ম’ন্ত অবস্থায় দা দিয়ে জ’বা’ই এবং কু’পি’য়ে হ’ত্যা করে তার স্ত্রী জুলেখা বেগম।

হ’ত্যা’কা’ণ্ড ঘটানোর আগে দিনের বেলায় পারিবারিক নানা বিষয় নিয়ে তাদের মধ্যে ঝ’গ’ড়া হয়। পরবর্তীতে রাত প্রায় ১০টার দিকে স্বামী-স্ত্রী একই বিছানায় ঘুমাতে যায়। এরপর আনুমানিক রাত সাড়ে ১১টার দিকে স্বামী আবু তাহেরকে ঘুমে রেখে গ’লা’য় দা দিয়ে কু’পি’য়ে হ’ত্যা করে স্ত্রী জুলেখা।

পরবর্তীতে স্বামীর ম’র’দেহ ঘরে রেখে বাড়ির পাশের ঝোঁপের ভেতর লু’কি’য়ে থাকে সে। এ ঘটনায় পুলিশ আবু তাহেরের ম’র’দেহ উ’দ্ধা’র করে এবং স্ত্রী জুলেখাকে ঝোঁপের ভেতর থেকে আ’ট’ক করে।

পরে তাহেরের ভাই ওয়াহেদ আলী বাদী হয়ে এ ঘটনায় মুরাদনগর থানায় একটি হ’ত্যা মা’ম’লা দায়ের করেন। এতে জুলেখা আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও দেয়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা একই বছরের ৫ মে মামলার চার্জশিট জমা দেন। এরপর দীর্ঘ শুনানি শেষে বিচারক মঙ্গলবার এ রায় ঘোষণা করেন।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন