ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সেতুর নাম নিয়ে মাতামাতি

প্রকাশিত: সেপ্টে ৩০, ২০২০ / ১০:৫৪অপরাহ্ণ
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সেতুর নাম নিয়ে মাতামাতি

ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার প্রধান সড়ক ধরা হয় টিএ রোডকে। এ রোডের মাঝামাঝি রয়েছে একটি সেতু। বুধবার ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর পরিষদের এক সভায় ওই সেতুটির নাম রাখা হয়েছে ‘থানা ব্রিজ’। এর আগে মঙ্গলবার পৌরসভার পক্ষ থেকে ওই সেতুতে সাইনবোর্ড টানিয়ে দেওয়া হয়। পৌর কর্তৃপক্ষ বলছে, আগে সেতুটি ‘ফকিরাপুল’ হিসেবে পরিচিত থাকায় শুনতে খারাপ লাগে বলে নাম পরিবর্তন করা হয়েছে।

এদিকে এ সেতুতে বসে যেন কেউ ভিক্ষাবৃত্তি না করতে পারে সে বিষয়েও ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ওই সেতুতে বসে ভিক্ষা করতেন এমন কয়েকজনকে সমাজ সেবা অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে ২৫ হাজার টাকা ও পৌরসভার পক্ষ থেকে ২০ কেজি করে চাল দেয়া হয়। ভিক্ষুকদের কর্মসংস্থানের লক্ষ্যেই এ উদ্যোগ নেওয়া হয়।

নতুন রাখা ওই নাম নিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়াতে শুরু হয়েছে আলোচনা-সমালোচনা। রাজনৈতিক কিংবা অন্য সব বিষয়কে ছাপিয়ে এ সেতু নিয়ে দু’দিন ধরে চলছে মাতামাতি। অনেকে এটাকে আগের প্রচলিত নাম ‘ফকিরাপুল’ কিংবা ‘ঘোড়াপট্টির পুল’ নামে নামকরণের দাবি জানিয়েছেন। অনেকে আবার সমাদৃত কিংবা খ্যাতিমান মানুষের নামেও নামকরণের দাবি তুলেছেন।

কথা হলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার লেখক ও সাহিত্য একাডেমির সভাপতি কবি জয়দুল হোসেন বুধবার সন্ধ্যায় কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘সেতুটি যেখানে আছে এর কাছেই যাতায়তের ঘোড়া এসে দাঁড়াতো। ঘোড়া দাঁড়াতো বলে এলাকাটির নাম ঘোড়াপট্টি হিসেবে পরিচিতি পায়। পরে সেখানে সেতু নির্মাণ হলে ঘোড়াপট্টির পুল হিসেবেই সবাই বলতো। পরবর্তীতে এ সেতুতে ভিক্ষুকরা বসতো বলে ফকিরাপুল নাম হয়ে যায়। আমি মনে করি নাম পরিবর্তনের জন্য সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনা করা যেতো। ঘোড়াপট্টির পুল দিলে ঐতিহ্যের সঙ্গে মিল থাকতো।’

উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সভাপতি জহিরুল ইসলাম স্বপন বলেন, ‘এটা অনেক আগে থেকেই ফকিরাপুল হিসেবে লোকমুখে পরিচিত। তবে ফকিরদেরকে কেন্দ্র করে এ নাম হওয়ায় সেটা পরিবর্তন করার বিষয়টি মানতে পারি না। কারণ ফকিররাও তো মানুষ।’

এদিকে এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও সমালোচনা চলছে। জেলা নাগরিক ফোরামের সভাপতি পিযূষ কান্তি আচার্য্য তাঁর দেওয়া ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ‘ঘোড়াপট্টি ব্রিজেরই নামকরণের দাবি জানাচ্ছি, থানা ব্রিজ নয়। কারণ ঘোড়াপট্টির সাথে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ইতিহাস জড়িত।’ কবি মো. মনির হোসেন এক কমেন্টস এ লিখেছেন, ‘সেতুটির নামকরণ শহরের কোনো সমাদৃত-খ্যাতিমান মানুষের নামেও হতে পারে।’ নারী নেত্রী নন্দিতা গুহ লিখেছেন, ‘ঘোড়াপট্টির পুল নামটির সাথে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ঐতিহ্য জড়িত, হিরন্ময় ইতিহাস আছে। এটা পরিবর্তন করা ঠিক হবে না।’

ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার সচিব মো. শামসুদ্দিন বুধবার বিকেলে কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ফকিরাপুল নামটা শুনতে খারাপ দেখায় বলে বুধবার পৌর পরিষদের সভায় নাম পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে সবাই একমত পোষণ করেছেন।’

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন