সংঘবদ্ধ ধ’র্ষ’ণের শি’কার তরুণী মৃ’ত্যুর কাছে হার মানলেন

প্রকাশিত: সেপ্টে ৩০, ২০২০ / ০৮:৫০অপরাহ্ণ
সংঘবদ্ধ ধ’র্ষ’ণের শি’কার তরুণী মৃ’ত্যুর কাছে হার মানলেন

অবশেষে মৃ’ত্যু’র কাছে হার মানলেন ভারতের উত্তর প্রদেশের হাথরস এলাকায় সংঘ’ব’দ্ধ ধ’র্ষ’ণের শি’কা’র এক তরুণী। ১৫ দিন মৃ’ত্যু’র সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে আজ মঙ্গলবার চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃ’ত্যু হয়।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস জানায়, সং’ঘ’বদ্ধ ধ’র্ষ’ণের পাশাপাশি তাঁর উপর নৃ’শং’স অ’ত্যা’চার চালায় দু’ষ্কৃ’তকারীরা। আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের জওহরলাল নেহরু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা চলছিল তাঁর।

অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় সোমবার স্থানান্তরিত করা হয় দিল্লির সফদর জং হাসপাতালে। সেখানেই তাঁর মৃ’ত্যু হয়েছে। এই ধ’র্ষ’ণের ঘটনায় এরই মধ্যে চারজনকে গ্রে’প্তা’র করেছে পুলিশ।

নেহরু হাসপাতালের চিকিৎসকরা জানান, নি’র্ম’ম অ’ত্যা’চার চালানো হয়েছে ওই তরুণীর ওপর। প্র’চ’ণ্ড মা’র’ধ’র করা হয়েছে। শ্বাস’রো’ধ করে খু’নে’র চেষ্টাও করেছে দু’ষ্কৃ’তকারীরা।

মুখমণ্ডলে একাধিক জায়গায় এবং জিভে কা’ম’ড়ের গভীর ক্ষ’ত রয়েছে। শিরদাঁড়া ও ঘাড় মা’রা’ত্ম’ক ভাবে ক্ষ’তি’গ্রস্ত। অবশ ছিল দুই পা এবং একটি হাত। আইসিইউতে রেখে সব রকম চেষ্টা চালানো হয়েছিল। কিন্তু অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় পাঠানো হয় দিল্লির হাসাপাতালে।

ওই তরুণীর ভাই বলেন, ‘১৪ সেপ্টেম্বর হাথরস এলাকায় বাড়ির কাছেই একটি জমিতে মা ও আমার সঙ্গে জমিতে ঘাস কাটতে গিয়েছিলেন দিদি। বিকেলের দিকে আমি বাড়িতে চলে আসি। মায়ের থেকে কিছুটা দূরে ছিলেন দিদি। সেই সময় পিছন থেকে দিদিকে আ’ক্র’ম’ণ করে কয়েক জন দু’ষ্কৃ’তকারী।

গলায় ওড়না পেঁচিয়ে টানতে টানতে ক্ষেতের মধ্যে নিয়ে গিয়ে নৃ’শং’স অ’ত্যা’চার চালায় এবং সঘবদ্ধ ধ’র্ষ’ণ করে। পরে মা খুঁজতে খুঁজতে দিদিকে উদ্ধার করেন অচেতন অবস্থায়।’

পুলিশ জানিয়েছে, আ’ট’ক’কৃতদের বিরুদ্ধে সংঘ’ব’দ্ধ ধ’র্ষ’ণ, খু’নে’র চেষ্টা, তফসিলি জাতি ও জনজাতি আইনে মা’ম’লা দায়ের হয়েছে। সব তথ্যপ্রমাণ জোগাড় করে চলছে চার্জশিট তৈরির প্রক্রিয়া।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন