ছাত্রাবাসে তরুণী ধ’র্ষণ: আ’সামিদের পক্ষে দাঁড়াননি কোনো আইনজীবী

প্রকাশিত: সেপ্টে ২৮, ২০২০ / ০৩:৩৪অপরাহ্ণ
ছাত্রাবাসে তরুণী ধ’র্ষণ: আ’সামিদের পক্ষে দাঁড়াননি কোনো আইনজীবী

সিলেটের মুরারি চাঁদ (এমসি) কলেজের ছাত্রাবাসে স্বামীকে বেঁ’ধে গৃ’হবধূ ধ’র্ষণের ঘটনার মা’মলার প্রধান আ’সামি এম সাইফুর রহমান ও ৪নং আ’সামি অর্জুন লস্করকে আ’দালতে নেওয়া হয়। এসময় মা’মলার ত’দন্তকারী কর্মকর্তা আ’সামিদের ৭ দিনের রি’মান্ড আবেদন করলে শুনানি শেষে আ’দালত ৫ দিনের রি’মান্ড মঞ্জুর করেন।

রাষ্ট্রপক্ষে একাধিক আইনজীবী থাকলেও আ’সামি পক্ষে কোনো আইনজীবী দাঁড়াননি। সকল আইনজীবীই ধ’র্ষকদের সর্বোচ্চ শা’স্তি দাবি করেছেন। সিলেট মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রট আ’দালতের সিনিয়র আইনজীবীরা জানান, সিলেট একটি আধ্যাত্মিক নগরী। এ নগরীতে কুলষিত করেছে ধ’র্ষকরা। এমন ন্যা’ক্কারজনক ঘটনার কারণে সিলেটের কোন আইনজীবী ধ’র্ষকদের পাশে দাঁড়াননি।

এদিকে, ধ’র্ষকদের পক্ষে কোন আইনজীবী না দাঁড়ানোয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সিলেট আইনজীবী সমিতিতে ধন্যবাদ জানিয়েছেন অনেকেই। জানা যায়, স্বামীকে বেঁ’ধে গৃ’হবধূ ধ’র্ষণের ঘটনায় গ্রে’প্তারকৃত ছাত্রলীগ কর্মী ও মা’মলার প্রধান আ’সামি সাইফুর রহমান ও ৪ নং আ’সামি অর্জুন লস্করকে হাজির করে ধ’র্ষণ মা’মলার ত’দন্ত কর্মকর্তা শাহপরাণ থানার ওসি (ত’দন্ত) ইন্দ্রনীল ভট্টাচার্য ৭দিনের রি’মান্ড আবেদন করলে শুনানী শেষে বিচারক তাদের ৫দিনের রি’মান্ড মঞ্জুর করেন।

সিলেট মহানগর পুলিশের সহকারী কমিশনার (প্রসিকিউশন) অমূল্য কুমার চৌধুরী জানান, ধ’র্ষণ মা’মলায় সাইফুর ও অর্জুন লস্করের ৫ দিনের রি’মান্ড মঞ্জুর করেছেন আ’দালত।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার (২৫ সেপ্টেম্বর) রাত সাড়ে ৭টার দিকে সিলেট এমসি কলেজের হোস্টেলে এক তরুণীকে গণধ’র্ষণ করেছে মহানগর ছাত্রলীগের কয়েকজন কর্মী। অ’ভিযুক্ত সবাইও ছাত্রলীগ কর্মী। এদিকে তরুণীকে গণধ’র্ষণের ঘটনায় ৬ জনকে আ’সামি করে এসএমপির শাহপরাণ থানায় মা’মলা দা’য়ের করা হয়েছে। নি’র্যাতিত ওই তরুণীর স্বামী মাইদুল ইসলাম বা’দী হয়ে এ মা’মলা দা’য়ের করেন।

মা’মলার আ’সামিরা হলেন- সুনামগঞ্জ সদর উপজে’লার উমেদনগরের রফিকুল ইসলামের ছেলে তারেকুল ইসলাম তারেক (২৮), হবিগঞ্জ সদরের বাগুনীপাড়ার মো. জাহাঙ্গীর মিয়ার ছেলে শাহ মো. মাহবুবুর রহমান রনি (২৫), জকিগঞ্জের আটগ্রামের কানু লস্করের ছেলে অর্জুন লস্কর (২৫), দিরাই উপজে’লার বড়নগদীপুর (জগদল) গ্রামের রবিউল ইসলাম (২৫) ও কানাইঘাটের গাছবাড়ি গ্রামের মাহফুজুর রহমান মাসুমকে (২৫)।

ইতিমধ্যে সাইফুর, অর্জুন, রবিউল, রনি ও রাজনকে গ্রে’ফতার করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এ ঘটনায় অ’ভিযুক্তকে সহযোগিতা করায় আরো একজনকে আ’টক করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। অন্যদিকে রোববার দুপুরে সিলেট মহানগর হাকিম ৩য় আ’দালতের হাকিম শারমিন খানম নিলার কাছে সেই রাতের ঘটনার জ’বানব’ন্দি দেন নি’র্যাতনের শি’কার তরুণী। এসময় তিনি ঘটনার বিস্তারিত বর্ণনা দেন। আর আ’দালত তরুণী জ’বানব’ন্দি রেকর্ড করেন।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন