মামাতো বোন বিয়েতে রাজি না হওয়ায় আত্ম’হ’ত্যা

প্রকাশিত: সেপ্টে ২১, ২০২০ / ০৭:৫৬অপরাহ্ণ
মামাতো বোন বিয়েতে রাজি না হওয়ায় আত্ম’হ’ত্যা

গাজীপুর মহানগরীর কোনাবাড়ী এলাকা থেকে দুজনের মৃ’ত’দে’হ উ’দ্ধা’র করেছে পুলিশ। সোমবার সকালে কোনাবাড়ী থানার পুলিশ মৃ’ত’দে’হ দুটি উদ্ধার করে।

উদ্ধার করা মৃ’ত’দে’হের একটি কোনাবাড়ির বাইমাইল এলাকার স্ট্যান্ডার্ড গ্রুপের একটি গার্মেন্টের শ্রমিক স্মরণ আক্তারের (১৯)। সিরাজগঞ্জের কাজীপুর থানার রশিদপুর গ্রামের নায়েব আলীর মেয়ে স্মরণ আক্তার স্বামী বাবুর সঙ্গে বাইমাইল এলাকায় ভাড়া থেকে ওই কারখানায় অপারেটর পদে চাকরি করতেন।

অপরটি মৃ’ত’দে’হটি টাঙ্গাইলের নাগরপুর থানার চরবাররা গ্রামের সোমবাদ আলীর ছেলে ঝুট ব্যবসায়ী মো. এরশাদ আলীর (৩৪)। কোনাবাড়ী আমবাগ পশ্চিমপাড়া এলাকায় ভাড়া থেকে তিনি ঝুট ব্যবসা করতেন।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কোনাবাড়ী থানার ওসি এমদাদ হোসেন জানান, স্মরণ আক্তারের স্বামী বাবুও গার্মেন্ট শ্রমিক। রবিবার সন্ধ্যায় স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝ’গ’ড়া হলে স্মরণ মামার বাইমাইলের ভাড়া বাসায় চলে যায়।

স্মরণের মামা-মামি দুজনই গার্মেন্টে চাকরি করেন। রাত ১০টার দিকে তারা ডিউটিতে চলে যায়। সকালে বাসায় ফিরে তারা স্মরণকে গ’লা’য় ওড়না পেঁ’চা’নো অবস্থায় ঘরের সিলিং ফ্যানের সাথে ঝু’ল’তে দেখেন।

অপরদিকে বিদেশফেরত এরশাদ আলীর লাশও ঘরে ঝুলছিল। তিনি প্যারামেডিক্যা্লে অধ্যয়নরত মামাতো বোনকে বিয়ে করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু এরশাদ লেখাপড়া না জানায় মামা ও মামাতো বোন বিয়েতে রাজি হননি। এ নিয়ে এরশাদ হ’তা’শায় ভুগছিলেন। পকেটে মামাতো বোনের ছবি নিয়ে ঘুরতেন।

তিনি আরো জানান, মৃ’ত’দে’হ দুটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর ম’র্গে পাঠানো হয়েছে। ম’য়’না’তদন্তের রিপোর্ট পেয়ে পরবর্তী ব্যবস্থ নেওয়া হবে।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন