ক্ষো’ভ থেকেই ইউএনওর ওপর হা’মলা করে রবিউল

প্রকাশিত: সেপ্টে ২০, ২০২০ / ১১:০৩অপরাহ্ণ
ক্ষো’ভ থেকেই ইউএনওর ওপর হা’মলা করে রবিউল

দিনাজপুরে ঘোড়াঘাট উপজেলার ইউএন ওয়াহিদা খানমকে বাসায় ঢুকে হ’ত্যা চেষ্টা মামলায় দুই দফা রিমান্ড শেষে মামলার অন্যতম আ’সামি ইউএনওর বাড়ির সাময়িক বরখাস্ত মালি রবিউল ইসলাম আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দিতে হা’মলার দায় স্বীকার করেছেন। পরে তাকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

আজ রবিবার কড়া নিরাপত্তা মধ্যে রবিউলকে দিনাজপুর আদালতে নিয়ে আসে পুলিশ। পরে বিকেল সাড়ে ৩টায় চিফ জুডিশিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রিট বিচারক ইসমাইল হোসেনের আদালতে রবিউলকে হাজির করা হলে তিনি স্বীকারোক্তিমূলক জবানিতে আদালতের কাছে হা’মলার দায় স্বীকার করেন। দিনাজপুর কোর্ট পরিদর্শক ইসরাইল হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এদিন আদালতে প্রায় ৩ ঘণ্টা বিচারকের সামনে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন রবিউল। জবানবন্দির পর রবিউলকে দিনাজপুর জেলা কারাগারে প্রেরণ করা হয়।

জবানবন্দিতে রবিউল জানান, ক্ষো’ভ থেকে তিনি একাই এ ঘটনা ঘটিয়েছেন। গত জানুয়ারিতে ইউএনও ওয়াহিদা খানমের ব্যাগ থেকে টাকা চুরির অভিযোগে রবিউলকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। এ কারণে রবিউল ক্ষুব্ধ হন। ১ সেপ্টেম্বর তাকে চাকরি থেকে চূড়ান্ত বরখাস্ত করা হয়। এতেই রবিউল ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে হ’ত্যার সিদ্ধান্ত নিয়ে হামলা করেন।

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে রবিউল ইসলাম জানিয়েছেন, এ ঘটনার একমাত্র পরিকল্পনাকারী এবং হা’মলাকারী তিনি নিজেই। আক্রোশ থেকেই এ ঘটনা ঘটিয়েছেন তিনি। তার দেওয়া তথ্য মতে হা’মলায় ব্যবহৃত হা’তুড়ি, লা’ঠি, মই, চাবিসহ বিভিন্ন আলামত উদ্ধার করেছে পুলিশ। একই সঙ্গে তার পরনের প্যান্ট, হাতের ছাপসহ মোবাইলের লোকেশন আলামত হিসেবে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। এসব আলামত বিচারকার্যে সহায়ক হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

গত ৯ সেপ্টেম্বর সন্দেহভাজন ও প্রযুক্তির সহায়তার রবিউল ইসলামকে নিজ বাড়ি থেকে আ’টক করে পুলিশ। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি নিজের দোষ স্বীকার করেন।

গত ২ সেপ্টেম্বর রাত আনুমানিক আড়াইটার দিকে দু’র্বৃত্তরা মই বেয়ে ইউএনও ওয়াহিদার সরকারি বাসায় ঢুকে এবং ভেন্টিলেটর ভেঙে ইউএনওর রুমে প্রবেশ করে তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আ’ঘাত শুরু করে। একসময় ইউএনও’র চিৎকার শুনে তার মুক্তিযোদ্ধা বাবা পাশের রুম থেকে ছুটে এসে মেয়েকে বাঁচানোর চেষ্টা করলে দুর্বৃত্তরা তাকেও কু’পিয়ে জখম করে।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন