সৌদি থেকে লা’শ হয়ে ফিরল নি’র্যাতনের শি’কার সেই কুলসুম

প্রকাশিত: সেপ্টে ১৪, ২০২০ / ১০:৩৫অপরাহ্ণ
সৌদি থেকে লা’শ হয়ে ফিরল নি’র্যাতনের শি’কার সেই কুলসুম

পরিবারের সচ্ছলতা আনতে কি’শোরী বয়সে সৌদি আরবে গিয়েছিল ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজে’লার গোর্কণ ইউনিয়নের নূরপুর গ্রামের শহিদুল ইস’লামের মে’য়ে উম্মে কুলসুম (১৪)।

সেখানে গিয়ে চাকরি আর বেতনের পরিবর্তে নি’র্যা’ত’নের শি’কা’র হয়ে সৌদি আরবের একটি হা’সপাতা’লেই শেষ নিঃশ্বা’স ত্যা’গ করেন কি’শোরী কুলসুম। স্বপ্নযাত্রা ধূ’লিসাৎ হয়ে অ’বশেষে লা’শ দেশের মাটিতে ফিরল কি’শোরী।

কুলসুমের বড়বোন উম্মে হাবিবা আক্ষেপ করে বলেন, অনেক স্বপ্ন নিয়ে আমা’র বোন সৌদি আরব গিয়েছিল। সেখানে অ’মানুষিক নি’র্যাতনের শি’কার হয়ে আমা’র বোন লা’শ হয়ে দেশের মাটিতে ফিরল। আম’রা জানি এর বিচার পাব না।

তিনি কা’ন্নাজ’ড়িত কণ্ঠে বলেন, গত ৯ আগস্ট আমা’র বোন সৌদি আরবের একটি হা’সপাতা’লে মা’রা যায়।

শুক্রবার (১১ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাত দেড়টার দিকে আমা’র ছোট বো’নের লা’শ হযরত শাহ’জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আসে। শনিবার দুপুরে তার লা’শ গ্রামের বাড়িতে পৌঁছায়। বাদ মাগরিব তার লা’শ দাফন করা হয়।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ স’রকারের কাছে আম’রা এ ঘটনার জন্য বিচার চাই। কেন এভাবে বিদেশের মাটিতে গিয়ে অকালে ম’রতে হবে?

নি’হতের পিতা শহিদুল ইস’লাম জানান, গত মাসের ১৭ আগস্ট জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোতে তিনি তার মে’য়ের লা’শ ও আট মাসের বকেয়া বেতন ফেরত পেতে একটি লিখিত আবেদন করেন।

লিখিত অ’ভিযোগ তিনি বলেন, স্থানীয় দালাল রাজ্জাক মিয়ার মাধ্যমে ৩০ হাজার টাকা খরচ করে ১৭ মাস আগে মেসার্স এম এইচ ট্রেড ইন্টারন্যাশনালের (আর এল নং-১১৬৬) মাধ্যমে কুলসুমকে গৃ’হকর্মীর কাজে সৌদি আরব পাঠানো হয়।

সেখানে গৃহকর্মী হিসেবে যোগদানের পর থেকেই আমা’র মে’য়ে কুলসুমের উপর শা’রীরিক ও যৌ’ন নি’র্যাতন শুরু করে মালিকপক্ষ। নি’র্যাতনের কারণে মে’য়েকে ফিরিয়ে আনার জন্যে রিক্রুটিং এজেন্সির সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করার পরও তাদের পক্ষ থেকে কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি।

গত চার মাস পূর্বে সৌদি আরবে গৃহক’র্তা ও তার ছে’লে মিলে কুলসুমের দুই হাঁ’টু, কো’ম’র ও পা ভে’ঙে দেয়। এর কিছুদিন পর একটি চোখ ন’ষ্ট করে রাস্তায় ফে’লে দেয়। পরে সৌদি আরবের পু’লিশ তাকে উ’দ্ধার করে সেখানকার কিং ফয়সাল হাসপাতা’লে ভর্তি করে। গত ৯ আগস্ট সেখানকার হা’সপাতা’লে চি’কিৎসাধীন অবস্থায় মা’রা যায় কুলসুম।

নি’হতের মা নাসিমা বেগম বলেন, মে’য়ে মা’রা যাওয়ার পর একাধিকবার প্রতিকার চেয়ে নাসিরনগর থা’না পু’লিশের কাছে গিয়েছিলাম। কিন্তু তারা কোনো পাত্তা দেননি।

তিনি তার কন্যা কুলসুম হ’ত্যার বিচার দাবি করেন। পাশাপাশি বিদেশের মাটিতে গিয়ে হ’ত্যার ঘটনায় তিনি ক্ষ’তিপূরণ দাবি করেন।

এ ব্যাপারে নাসিরনগর থা’নার ভা’রপ্রাপ্ত কর্মক’র্তা (ওসি) এটিএম আরিচুল হক জানান, দুই দেশের বি’ষয় হওয়ায় নাসিরনগর থা’না পু’লিশের পক্ষে কোনো ধরনের আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার সুযোগ নেই। এছাড়া পররাষ্ট্র ম’ন্ত্রণালয় থেকে আম’রা কোনো ধরনের নির্দেশনা পাইনি। তাই আপাতত আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার কোনো সুযোগ নেই।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন